কলকাতা: শীত, গ্রীষ্ম, বর্ষা যেমন ছাতাই ভরসা তেমনই পোশাকের ভরসা হলো স্টাইল। আপনি স্টাইল করতে চাইলে যে কোনো সময়ে আপনাকে নিজের বেস্টটা দেখাতেই হবে। তাই সেখানে কোনো কম্প্রোমাইজ চলে না। ফলে ওয়ার্ডরোব জুড়ে একগাদা জামাকাপড় থাকলেও এমন কিছু জিনিস থাকতেই হবে যা ছাড়া আপনার লুক অসম্পূর্ণ। বেশি পোশাকে আলমারি না ভরিয়ে এমন পোশাক ও কিছু জিনিস রাখুন যা যে কোনো সময়ে আপনার বেস্ট লুকটি ফুটিয়ে তুলতে পারে। এক্ষেত্রে শুধু পোশাকের কথা বললে ভুল হবে কারণ শুধু পোশাকই সাজ সম্পূর্ণ করে না। তাই পোশাক ও তার সঙ্গে এক্সেসরিজের কথা ভুলে গেলে চলবে কী করে?

১. সাদা শার্ট: এটি ওয়ার্ডরোবে সবার উপরে রাখবেন। মূলতঃ এই শার্টটি সকলেই ইন্টারভিউ বা অফিসের কাজে পরেন। তাই কখন কী কাজ এসে যায় কে জানে। আর আজকাল তো ওয়ার্ক ফ্রম হোম- এর যুগে ফর্মাল থাকাটা আরো বেশি জরুরি হয়ে গিয়েছে। তাই বোতাম দেওয়া সাদা শার্ট ছাড়া আপনার ফর্মাল কুক সম্পূর্ণ নয়। তবে এটা শুধুই অফিস নয়, তার বাইরেও পরতে পারেন যদি থাকে বুদ্ধি। এর সঙ্গে নীচে একটি ফ্লোরাল বা প্রিন্টেড স্কার্ট পরুন। ডেনিমও পরতে পারেন বিশেষ ডেটে বা বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডায়।

২. কালো ফ্রক: পোশাকে উষ্ণতা ছড়াতে হাঁটু অবধি কালো একটা ফ্রক আজই খুঁজুন। এর সঙ্গে নানা সাজ মানাবে। গোল্ডেন বেল্ট পরতে পারেন কোমরে আর সঙ্গে পায়ে বুট। আবার কালো স্টিলেটোও আভিজাত্য আনবে। কানে অবশ্যই গোল্ডেন রিং বা ওয়েস্টার্ন ইয়ারিংস থাকবে। আর হাতে একটা কালো চকচকে বা গোল্ডেন ক্লাচ।

৩. সাদা স্নিকার: আজকাল দৌড়ানোর যুগে আপনি যে কোনো পোশাকে পড়তে পারেন স্নিকার। তবে সাদা হলে বেশ সব রঙের পোশাকেই মানাবে। এর সঙ্গে হলুদ বা লাল টপ, ডেনিম, এক রঙের স্কার্ট, স্ট্রেইট প্যান্ট সবই ট্রাই করতে পারেন।

৪. হাত-ঘড়ি: অসময়ে কাজ দেয় এই যন্ত্রটি। আপনার যে কোনো স্টাইলকে সম্পূর্ণ করবে একটি ঘড়ি। তবে সেক্ষেত্রে ঘড়ি বাছাইয়ের ভূমিকা থাকে। আজকাল আবার অনেকেই এক্সপেরিমেন্ট করছে। ফর্মাল সাজের সঙ্গে রঙিন ডায়ালের বা ফাঙ্কি ঘড়ি আবার শাড়িতেও ফাঙ্কি ঘড়ি বা বড়ো ডায়ালের ঘড়ি খুব চলছে ফ্যাশনে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।