লখনউ : গণপিটুনি রুখতে মুসলিমদের গোমাংস খাওয়া ছেড়ে দেওয়া উচিত৷ তাহলেই গণপিটুনির মত হিংসাত্মক ঘটনার সংখ্যা কমে যাবে দেশে৷ এমনই বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন উত্তরপ্রদেশ শিয়া ওয়াকফ বোর্ডের চেয়ারম্যান ওয়াসিম রিজভি৷

সংবাদ সংস্থা এএনআইকে দেওয়া সাক্ষাতকারে তিনি বলেন ইসলামে গোমাংস ভক্ষণকে ‘হারাম’(পাপ) বলা হয়েছে৷ কিন্তু কোনও মুসলিমই তা মানেন না৷ যারা গোহত্যা করে তাদের কড়া শাস্তির দাবি করেছেন রিজভি৷

তাই গোমাংস খাওয়া ও গোহত্যা করা বন্ধ করা উচিত বলে দাবি করেছেন তিনি৷ গণপিটুনি বন্ধ করার জন্য যে পরিমাণ নিরাপত্তা কর্মী প্রয়োজন তা মোতায়েন করা সম্ভব নয়৷ তাঁর মতে এজন্য মুসলিমদের এগিয়ে আসতে হবে৷ গোমাংস খাওয়া বন্ধ হলেই গণপিটুনির হাত থেকে নিষ্কৃতি মিলবে৷

তাই যারা গরু পাচারে যুক্ত অথবা গোহত্যা করছে, তার বিরুদ্ধে কড়া আইন নিয়ে আসুক কেন্দ্র বলে মত তাঁর৷ রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘ নেতা ইন্দেশ কুমারের বক্তব্যের সঙ্গে একমত হয়ে রিজভি বলেন যেখানে গরুকে মায়ের মর্যাদা দেওয়া হয়, সেখানে কারোর ভাবাবেগে আঘাত করে গোহত্যা পাপ৷ ধর্মীয় হিংসা রুখতে এটাই একমাত্র পদক্ষেপ বলে মনে করেন তিনি৷

সোমবার এক সম্মেলনে আরএসএসের নেতা ইন্দেশ কুমার বলেন যদি গোহত্যা বন্ধ হয়, তবে গণপিটুনিও নিজে থেকেই বন্ধ হয়ে যাবে৷ তিনি স্পষ্টভাবেই জানান, কোনও হিংসার ঘটনাকে স্বাগত জানানো উচিত নয়, এই হিংসা বন্ধ করতে হলে গরু হত্যাও বন্ধ করতে হবে, বন্ধ করতে হবে গোমাংস ভক্ষণ৷ তিনি জানান, মক্কা-মদিনায় গোহত্যাকে অপরাধ বলে মনে করা হয়৷

এদিকে, গোরক্ষার নামে আলোয়ারে হওয়া হত্যার বিষয়ে ফের একবার বিতর্কিত বিবৃতি উঠে এল৷ এক জাতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী বিজেপি নেতা বিনয় কাতিয়ার বলেছেন, গরু ছোঁওয়ার আগে মুসলমানদের ভাবনা চিন্তা করা উচিত৷