আগরতলা: নির্বিঘ্নে বকরিদ পালন করতে আগ্রহী রাজ্যের সংখ্যালঘু মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষেরা। উৎসব যেন শান্তিপূর্ণভাবে পালিত হয় তার জন্য মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের উপরেই আস্থা রাখল ত্রিপুরার পুরনো ইসলামি সংগঠন জমিয়ত উলেমা-ই হিন্দ।

রবিবার মুফতি তায়েবুর রহমান সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েছিলেন। সেখানেই ত্রিপুরা রাজ্যের সংখ্যালঘু মুসলিমদের প্রতিকূল অবস্থার কথা তুলে ধরেন। গেদু মিয়া মসজিদে সাংবাদিকদের সামনে দাঁড়িয়ে তিনি মুসলিমদের বকরিদ পালন নিয়ে আশংকা প্রকাশ করেছেন। তাঁর আশংকা, “দীর্ঘদিনের রেওয়াজ অনুসারে কুরবানির ক্ষেত্রে এই বছরে হয়তো সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে।”

আরও পড়ুন- ‘হত্যাকাণ্ড কোনও উৎসব নয়’, কোরবানি বিতর্কে তসলিমা

ত্রিপুরার জমিয়ত উলেমা-ই হিন্দের সভাপতি হলেন মুফতি তায়েবুর রহমান। কোনও প্রকার ভীতি ছাড়া ত্রিপুরার মুসলিমরা ত্যাগের উৎসব পালন করতে চাই বলে জানিয়েছেন তিনি। এই বিষয়ে তাঁদের সংগঠনের পক্ষ থেকে মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের সঙ্গেও কথা হয়েছে দাবি করেছেন মুফতি তায়েবুর রহমান। তাঁর কথায়, “নতুন সরকার গঠিত হওয়ার পর মুখ্যমন্ত্রীর অফিসে গিয়ে তাঁর সঙ্গে সংগঠনের কয়েকজন সদস্য এবং আমি গিয়ে দেখে করেছিলাম।” মুখ্যমন্ত্রী বিষয়টি খতিয়ে দেখার আশ্বাস দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন মুফতি তায়েবুর রহমান।

সংখ্যালঘু মুসলিম সম্প্রদায়ের এই ভীতির জন্য বিজেপি-আইপিএফটি পরিচালিত ত্রিপুরার নতুন সরকার দায়ি নলে অভিযোগ করেছেন মুফতি তায়েবুর রহমান। এই সরকার গঠিত হওয়ার পরে মুসলিম সম্প্রদায়ের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা এবং খাদ্যাভ্যাস আক্রমণের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাঁর মতে, “ত্রিপুরার অনেকেই গরু, মোষ এবং ছাগল বিক্রি করে। এখন পশু ভরতি কোনও গাড়ি দেখলেই থামিয়ে তল্লাশি করা হচ্ছে। এই বিষয়ে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানাচ্ছি।”

আরও পড়ুন- ‘ধর্মনিরপেক্ষতার অর্থ সংখ্যালঘু সাম্প্রদায়িকতাকে সহ্য করা নয়’

ত্যাগের উৎসব বকরিদ যাতে সুস্থভাবে সম্পন্ন হতে পারে সেই বিষয়ে সরকারকে উপযুক্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করা দাবি করেছেন জমিয়ত উলেমা-ই হিন্দের ত্রিপুরা শাখার সভাপতি মুফতি তায়েবুর রহমান। তাঁর অভিযোগ, “ভারতের সংবিধান অনুসারে নিজের পছন্দ অনুসারে খওয়া মানুষের মৌলিক অধিকার। কিন্তু এক শ্রেণীর মানুষ মুসলিমদের খাদ্যাভ্যাসে হস্তক্ষেপ করছে। এটা বন্ধ হওয়া দরকার।”

রাজ্যের যে সকল স্থানে সংখ্যালঘু মুসলিমদের হেনস্থা হতে হয়েছে বিস্তারিত নথি সহ সাংবাদিক সম্মেলনে নথি সহ সেই সকল জায়গার উল্লেখ করেছেন মুফতি তায়েবুর রহমান। একই সঙ্গে ওয়াকফ বোর্ডের বদল চেয়ে সরকারের কাছে দাবি করেছেন জমিয়ত উলেমা-ই হিন্দের ত্রিপুরা শাখার সভাপতি।