ভোপাল : চারিদিকে ধর্মীয় অসহিষ্ণু বাড়ছে৷ মুসলিম সম্প্রদায়ের ওপর হামলার ঘটনা রোজই সংবাদ শিরোনামে৷ দাবি মধ্যপ্রদেশ সরকারের এক মুসলিম আমলার৷ তাঁর আশঙ্কা তিনি মুসলিম হওয়ায় যে কোনও দিন গণপিটুনির শিকার হতে পারেন৷ তাই শনিবার তাঁর ঘোষণা নাম পরিবর্তন করছেন তিনি৷

গণপিটুনির হাত থেকে বাঁচতে নিজের নাম পরিবর্তন, এমন ঘটনা চাঞ্চল্য ফেলেছে রাজ্যে৷ মধ্যপ্রদেশ সরকারের উর্দ্ধতন আধিকারিক নিয়াজ খানের ভয় তাঁর নামই না তাঁর মৃত্যুর কারণ হয়ে ওঠে৷ গোটা দেশে মুসলিমদের ওপর নির্যাতন চলছে বলে দাবি করেন নিয়াজ৷ তাই মুসলিম পরিচয় ছাড়াই বাঁচতে চাইছেন তিনি৷ নতুন নাম হয়ত তাঁর প্রাণ বাঁচাবে৷

তবে নিয়াজের দাবি তাঁকে সাধারণ মুসলিমদের মত দেখতে নয়৷ তাঁর মতে তিনি মুসলিমদের মত কুর্তা পাজামা পরেন না, তাঁর দাড়ি নেই৷ ইচ্ছাকৃত ভাবেই সেই বেশ তিনি ধারণ করেননি৷ কিন্তু নিজের মুসলিম নাম নিয়ে বেশ চিন্তায় নিয়াজ৷ খান পদবি তাঁকে প্রাণভয়ে রেখেছে বলে দাবি নিয়াজের৷ তিনি আশংকা প্রকাশ করেছেন নিজের ভাইয়ের জন্যও৷ কারণ তাঁর ভাই আর পাঁচটা মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষের মতই বেশ ধারণ করেন৷

কিন্তু নতুন নাম কীভাবে বাঁচাবে তাঁকে? নিয়াজ খানের দাবি উন্মত্ত জনতার হাতে পড়লে নিজের ভুয়ো হিন্দু নাম বলে কোনও রকমে বেরিয়ে আসতে পারবেন তিনি৷ হিন্দু নাম থাকলে, কেউ তাকে গণপিটুনি অন্তত দেবে না৷

এরই সঙ্গে তিনি জানান, দেশের সব মুসলিমদেরই আপাতত নিজের নাম পরিবর্তন করে নেওয়া উচিত৷ তাতে মুসলিমদের ওপর ক্ষোভ কমতে পারে৷ নিজেদের বাঁচাতে ভুয়ো নাম নেওয়াই বাঞ্ছনীয় বলে জানান তিনি৷ তবে দেশের সাধারণ মানুষ শুধু নয়, সেরকম পরিস্থিতিতে গণপিটুনির হাত থেকে বাঁচবেন না বলিউডের তাবড় মুসলিম অভিনেতাও৷ এমনই আশঙ্কা তাঁর৷

নিয়াজের দাবি মুসলিম হওয়ার জন্য ভালো ভালো মুসলিম অভিনেতাদের সিনেমা ব্যর্থ হচ্ছে৷ অথচ হিন্দু অভিনেতারা পার পেয়ে যাচ্ছেন খারাপ অভিনয় করেও৷ ট্যুইট করে নিজের সংশয় উগরে দিয়েছেন নিয়াজ খান৷