মুর্শিদাবাদ: নির্বাচিত করা হল মুর্শিদাবাদ জেলা পরিষদের সভাধিপতি ও সহকারী সভাধিপতি৷ সভাধিপতি হলেন মোশারফ হোসেন৷ সহ-সভাপতি পদে নির্বাচিত হলেন বিদায়ী সভাধিপতি বৈদ্যনাথ দাস৷ রাজ্যের অন্যতম বৃহৎ এই জেলা পরিষদে আসন সংখ্যা ৭০৷

আরও পড়ুন: BREAKING- প্রকাশ পেল সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের নয়া ভিডিও

গত পঞ্চায়েত ভোটে ৭০টি আসনের মধ্যে মাত্র ২২টিতে প্রার্থী দেয় বিরোধীরা৷ বাকি সবক’টি আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়লাভ করে তৃণমূল৷ যে ২২টি আসনে ভোট হয় তারমধ্যে একটিতে জয়ী হয় কংগ্রেস৷ বাকিগুলি সবই তৃণমূল পায়৷ বুধবার দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর ঘোষণা করা হল মুর্শিদাবাদ জেলা পরিষদের সভাধিপতি ও সহ-সভাধিপতির নাম৷ সর্বসম্মতিক্রমেই এই নাম ঘোষণা করা হয় বলে জেলা পরিষদ সূত্রে খবর৷

মুর্শিদাবাদ জেলা এক সময় কংগ্রেসের দুর্ভেদ্য ঘাঁটি ছিল৷ রাজ্যে পালা বদলের পর তৃণমূল ধীরে ধীরে এ জেলায় থাবা বসাতে শুরু করে৷ এক সময়ের অধীর গড়ে এখন শুধুই ঘাসফুলের রমরমা৷ আগেই কংগ্রেসের হাত থেকে জেলা পরিষদ ছিনিয়ে নিয়েছিল তৃণমূল৷ এবং সভাধিপতি পদে বসিয়েছিল শাসকদলের বৈদ্যনাথ দাসকে৷ সহ-সভাধিপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন শাহানাজ বেগম৷

ফের এবারের পঞ্চায়েত ভোটে জেলা পরিষদ দখল করল তৃণমূল। নির্বাচন প্রক্রিয়া মেটার আগেই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এই জেলা পরিষদ দখল করে নেয় শাসকদল৷ কিন্তু সভাধিপতি গঠন ছিল শুধু সময়ের অপেক্ষা। লক্ষ্মীবারে জেলা পরিষদের দায়িত্ব হাতে পাওয়ার পর নতুন সভাধিপতি মোশারফ হোসেন জানান, তিনি এ জেলার সবথেকে বড় সমস্যা গঙ্গা ভাঙনের উপর বিশেষ নজর দিতে চান৷

আরও পড়ুন: সপ্তমী-অষ্টমীর মাঝে কনফিউজ আবীর

তা রোধ করতে যাবতীয় ব্যবস্থা করতে চান৷ একইসঙ্গে পানীয় জল, শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও সর্বপরি জেলার উন্নয়নকেই গুরুত্ব দিতে চান তিনি৷ আসন্ন শারদোৎসবে জেলার প্রায় ১০০টি মন্দির কমিটিকে বিশেষ ভাবে পুরস্কার দেওয়ার কথাও জানান নতুন সভাধিপতি মোশারফ হোসেন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.