বাসুদেব ঘোষ, সিউড়ি: ভাইয়ের মৃত্যুতে খুনের অভিযোগ উঠল দিদি এবং পাতানো কাকার বিরুদ্ধে৷ সিউড়ির মহম্মদ বাজার থানা অদূরে শালদহ মোড়ে ঘটনাটি ঘটেছে বলে জানা গিয়েছে৷

জানা গিয়েছে, বুধবার রাতে বাড়ির কাছেই পড়ে থাকতে দেখা যায় ওই যুবকের দেহ৷ নাম কালু ভগৎ (২৫)৷ পেশায় কাঠমিস্ত্রি কালু ভগত তার দিদি,পাতানো কাকা, ভাগ্নে এবং ভাইপোর সঙ্গে থাকত শালদহ মোড়ে নিজের বাড়িতে। ওই যুবকের দাদা বছর দুয়েক আগে সাপের কামড়ে মারা যায়।

তবে কালুর মৃত্যু নিয়ে পরিবারের দাবি, কেউ খুন করে তাকে রাস্তার উল্টোদিকে ফেলে দিয়েছে৷ মৃতের দিদি দেবিকা ভগত বলেন, ‘সকালে ফুল তুলতে গিয়ে একজন ভাই এর মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখে খবর দেয় ।গিয়ে দেখি রাস্তার পাশে পড়ে রয়েছে। নেশা করে বাড়িতে প্রায়ই ঝামেলা করত। কিছুদিন আগে এক লক্ষ পঁচাত্তর হাজার টাকা দিয়ে একটা জায়গা বিক্রি করা হয়। তার মধ্যে এক লক্ষ টাকা ভাই এবং আমার নামে ফিক্সড করা হয়। আর বাকি টাকার মধ্যে প্রায় চল্লিশ হাজার টাকা মদ-গাঁজা খেয়ে শেষ করে দেয়। সকালে দেখি বাড়ির উল্টোদিকে চিৎ হয়ে পড়ে রয়েছে । তার গলায় কালো দাগ ছিল। কেউ বা কারা খুন করেছে জানি না৷’

এদিকে, মৃতের পাতানো কাকা বাবু সাহেব ওরফে মুক্তার জানান, কালু গতকাল সন্ধ্যা ছটার সময় বাড়ি থেকে বেরিয়ে যায়। তারপর আর ফিরে আসেনি।

এরপর ঘরের ভিতরে দিদি ও পাতানো কাকার রুমে রক্তের দাগ দেখতে পায় প্রতিবেশীরা। এই ঘটনা তদন্তে নেমে মৃত যুবকের দিদি দেবিকা ভগত ও ওই কাকাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে মহঃবাজার থানার পুলিশ । মৃতদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সিউড়ি সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।