ওয়াশিংটন:  কোনও পুরুষ তাঁর স্ত্রীকে ভবিষ্যতে খুন করতে পারেন কিনা তা আগাম আন্দাজ করার একটি উপায় খুঁজে বের করলেন একদল গবেষক। তাঁদের মতে, যাঁদের মধ্যে পরিবারের সদস্য কিংবা স্ত্রীকে খুন করার মানসিকতা সুপ্ত রয়েছে তাঁদের চারিত্রিক এবং মানসিক বৈশিষ্ট্য অন্য খুনিদের থেকে আলাদা। গবেষণায় জানা গিয়েছে, যারা এই ধরণের খুন করতে পারেন তাঁরা আগে থেকে ব্যাপারটি কখনই ছকে রাখেন না। কাজেই আগে থেকে সাবধানতা অবলম্বন করলে এই ধরণের হত্যা এড়ানো যেতে পারে।

গবেষকদের মধ্যে অন্যতম প্রধান রবার্ট হ্যানলন জানাচ্ছেন, এই ধরণের খুনিদের মানসিকতা মূলত একই রকম হয়। তবে, পেশাদার খুনিদের থেকে আলাদা হয়। গবেষনার জন্য হ্যানলন নিজে প্রায় ১৫৩ জন খুনির সঙ্গে কথা বলেছেন। কথা বলে তিনি জেনেছেন, এই ধরণের খুনিরা প্রায় সবাই মানসিকভাবে অসুস্থ হয় এবং প্রায়শই এরা যুক্তিবোধ হারিয়ে ফেলে।

যদি দেখা যায় যে বাড়ির কেউ মানসিকভাবে দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ রয়েছেন কিংবা হিংসাত্মক আচরণ করছে, তাহলে আগে থেকে সাবধানতা অবলম্বন করলে এধরণের অপরাধ এড়ানো যেতে পারে। অনেক সময়ই বাড়ির লোকেরা ভেবে থাকেন আমার ছেলে কিংবা মেয়ে কিংবা স্বামী কিংবা স্ত্রী আমাকে আঘাত করবে না। কিন্তু এই ধারণা সম্পূর্ণ ভ্রান্ত। এই বিশ্বাসের সম্পূর্ণ উলটো ঘটনাও ঘটতে পারে। এরা সাধারণত মাদকাসক্ত হয়ে থাকে। এবং হিংসার বশবর্তী হয়ে অথবা প্রতিশোধ নিতে খুন করতে পারে। বাড়ির লোকের প্রশাসনিক কতৃপক্ষকে সময়ে বিষয়টি সম্পর্কে অবহিত করা উচিৎ বলে দাবি করেছেন গবেষকরা।