মুম্বই: ক্রিস গেইল ও লোকেশ রাহুল ভিত গড়ে দেন শক্তপোক্ত৷ কালবৈশাখীর মতো দমকা ঝড়ে ওয়াংখেড়ে কাঁপিয়ে গেইল বিদায় নিলেও বজ্র-বিদ্যুৎসহ বৃষ্টিতে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সকে ভিজিয়ে একশা করে ছাড়েন রাহুল৷ যার মিলিত ফল, মুম্বই ইন্ডিয়ান্সকে তাদের ডেরায় কড়া চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দেয় কিংস ইলেভেন পঞ্জাব৷

অল্পের জন্য দু’শো রানের গণ্ডি টপকানো হয়নি পঞ্জাবের৷ তবে দু’শোর কাছে পৌঁছে যেতে বিশেষ অসুবিধা হয়নি অশ্বিনদের৷ ওয়াংখেড়েতে গেইল ঝড় থেমে যাওয়ার পর ম্যাচে ফেরার মরিয়া চেষ্টা করে বটে মুম্বই, তবে সেই লক্ষ্য তারা তেমন একটা সফল হয়নি৷

আরও পড়ুন: ‘নাইট বধ’ করে এয়ারপোর্টের মেঝেতেই ঘুমিয়ে পড়লেন মাহি-সাক্ষী

গেইলের দুরন্ত হাফসেঞ্চুরি ও লোকেশের অসাধারণ শতরানে ভর করে টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করা কিংস ইলেভেন নির্ধারিত ২০ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ১৯৭ রান তোলে৷ সুতরাং, ঘরের মাঠে পঞ্জাবকে হারাতে হলে মুম্বইকে ছুঁতে হবে ১৯৮ রানের বড়সড় লক্ষ্যমাত্রা৷

গেইল-রাহুলের ওপেনিং জুটি ১২.৫ ওভারে ১১৬ রান তোলে৷ ৩১ বলে হাফসেঞ্চুরি করা গেইল শেষমেশ ৩৬ বলে ৬৩ রান করে বেহরেনডর্ফের বলে ক্রুণাল পান্ডিয়ার হাতে ধরা পড়েন৷ তিনি ৩টি চার ও ৭টি ছক্কা মারেন৷ চলতি আইপিএলে এটি গেইলের দ্বিতীয় হাফসেঞ্চুরি৷ মোহালিতে মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে প্রথম পর্বের ম্যাচে ২৪ বলে ৪০ রান করেছিলেন তিনি৷

আরও পড়ুন: নাইটদের বিরুদ্ধে দিল্লির ডাগ-আউটে থাকবেন সৌরভ

মোহালিতে মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে সফল হয়েছিলেন রাহুলও৷ তিনি ৫৭ বলে ৭১ রান করে অপরাজিত ছিলেন৷ ওয়াংখেড়েতে কার্যত ঠিক তার পর থেকে ব্যাটিং শুরু করেন লোকেশ৷ ফিরতি অ্যাওয়ে ম্যাচে তিনি ৬৪ বলে ১০০ রান করে অপরাজিত থাকেন৷ গোটা ইনিংসে তিনি ৬টি চার ও ৬টি ছক্কা মারেন৷ আন্তর্জাতিক টি-২০ ক্রিকেটে দু’টি সেঞ্চুরি থাকলেও আইপিএলে এটি তাঁর প্রথম শতরান৷

বাকিরা অবশ্য বিশেষ অবদান রাখতে পারেননি৷ মিলার ৮ বলে ৭ ও করুণ নায়ার ৬ বলে ৫ রান করে হার্দিক পান্ডিয়ার শিকার হন৷ স্যাম কারেন ৩ বলে ৮ রান করে বুমরাহকে উইকেট দেন৷ ৩ বলে ৭ রান করে অপরাজিত থাকেন মনদীপ সিং৷