চেন্নাই: ফের স্বল্প পুঁজি নিয়ে বাজিমাত করল রোহিত শর্মার মুম্বই ইন্ডিয়ান্স। গত ম্যাচে কলকাতা নাইট রাইডার্সের বিরুদ্ধে কার্যত হারা ম্যাচ জিতে ‘মিরাকল’ করেছিল তারা। এদিনও খানিকটা একই ঢং’য়ে বোলারদের দাপুটে পারফরম্যান্সে বাজিমাত পাঁচবারের চ্যাম্পিয়নদের। ১৫১ রানের লক্ষ্যমাত্রা তাড়া করতে নেমে শেষ ৮ রানে ৫টি উইকেট খোয়াল মুম্বই’য়ের প্রতিপক্ষ। দুই ওপেনার বেয়ারস্টো-ওয়ার্নারের হাত ধরে দারুণ শুরু করা সানরাইজার্স হায়দরাবাদ ম্যাচ হারল ১৩ রানে।

হারের হ্যাটট্রিক এড়াতে একাদশে চারটি পরিবর্তন এনে এদিন দল সাজিয়েছিল সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। ঋদ্ধিমান সাহা, জেসন হোল্ডার, টি নটরাজন ও শাহবাজ নাদিমকে বসিয়ে সুযোগ দেওয়া হয় বিরাট সিং, অভিষেক শর্মা, মুজিব-উর রহমান ও খলিল আহমেদকে৷ টস জিতে ব্যাটিং’য়ের সিদ্ধান্ত নিয়ে শুরুটা ভালোই করেছিলেন মুম্বই’য়ের দুই ওপেনার ডি’কক এবং রোহিত শর্মা। তবে বিধ্বংসী হয়ে ওঠার আগেই রোহিতকে (২৫ বলে ৩২) ফিরিয়ে দেন মুজিব।

কুইন্টন ডি’কক ৪০ রান করলেও তাঁকে বিধ্বংসী হতে দেননি সানরাইজার্স বোলাররা। ৫টি চারের সাহায্যে ৩৯ বলে ৪০ রান আসে প্রোটিয়া ওপেনারের ব্যাট থেকে। নিয়ন্ত্রিত বোলিং’য়ে মুম্বইয়ের রানের গতিতে ভালোই হ্রাস টেনেছিল সানরাইজার্স। কিন্তু শেষলগ্নে ২২ বলে ৩৫ রানের ‘ক্যামিও’ ইনিংস খেলে বিপক্ষের কাজটা একটু কঠিন করে তোলেন পোলার্ড। ১টি চার এবং ৩টি ছয় হাঁকিয়ে অপরাজিত থেকে দলের রান ১৫০ ছুঁইয়ে দেন ক্যারিবিয়ান পিঞ্চ-হিটার। উইকেট না পেলেও ফের কৃপণ বোলিং’য়ে নজর কাড়েন রশিদ খান। ২টি করে উইকেট নেন মুজিব-উর রহমান এবং বিজয় শংকর।

জবাবে শুরুটা ভালো হয়েছিল সানরাইজার্সেরও। পাওয়ার-প্লে’তে স্কোরবোর্ডে ৫৭ রান যোগ করেন দুই ওপেনার বেয়ারস্টো-ওয়ার্নার। ২২ বলে ৪৩ রান করে বেয়ারস্টো অষ্টম ওভারে দুর্ভাগ্যজনক হিট-উইকেট হলেও জয়ের রাস্তা তৈরি করে দিয়ে যান ইংরেজ ওপেনার। দলের রান তখন ৬৭। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে সেই অনুকূল অবস্থা থেকে পরিস্থিতি ক্রমশ জটিল করে তোলে সানরাইজার্স। মনীশ পান্ডে ফেরেন ২ রানে, ওয়ার্নার আউট হন ৩৬ রানে। বিরাট সিং এবং অভিষেক শর্মার সংগ্রহে যথাক্রমে ১১ এবং ২।

ব্যাটিং হারাকিরির মাঝে দাঁড়িয়ে বিজয় শংকর ২৫ বলে ২৮ রান করে একা চেষ্টা করলেও তাঁকে ন্যূনতম সহযোগীতা করতে পারেনি কেউ। রান-আউট হন আব্দুল সামাদ। সঙ্গে চাহার-বুমরাহ এবং বোল্টের ত্রিফলা আক্রমণে তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে সানরাইজার্সের ব্যাটিং লাইন-আপ। ওয়ার্নারের দলের শেষ পাঁচ ব্যাটসম্যানের কেউ দু’অঙ্কের রানে পৌঁছতে ব্যর্থ। শেষ অবধি ১৯.৪ ওভারে ১৩৭ রানে অল-আউট হয়ে হারের হ্যাটট্রিক করে সানরাইজার্স। মুম্বই’য়ের হয়ে ৩টি করে উইকেট নেন রাহুল চাহার এবং ট্রেন্ট বোল্ট।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.