মুম্বই: পড়ে পাওয়া সুযোগ কাজে লাগাতে ব্যর্থ কলকাতা নাইট রাইডার্স৷ এমনিতে আটটি ম্যাচে না জিতলে প্লে-অফের টিকিট মেলা মুশকিল৷ তবু ১৪ পয়েন্ট সংগ্রহ করে প্লে-অফে যাওয়ার সুযোগ এসেছিল নাইটদের সামনে৷ সানরাইজার্স হায়দরাবাদ শেষ ম্যাচে হেরে গিয়ে কলকাতার কাজ সহজ করে দিয়েছিল৷ তবে শেষরক্ষা হয়নি কেকেআরের৷ মুম্বইয়ের কাছে মরণ-বাঁচন ম্যাচে ৯ উইকেট আত্মসমর্পণ করেন দীনেশ কার্তিকরা৷ ফলে ১৪ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট নিয়ে আইপিএল থেকে বিদায় নিতে হয় তাদের৷

অন্যভাবে দেখলে বলা যায় সানরাইজার্স হায়দরাবাদকে প্লে-অফের টিকিট উপহার দেয় কেকেআর৷ কেননা, কলকাতার মতো হায়দরাবাদের সংগ্রহও ১৪ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট৷ তবে তাদের নেট রানরেট নাইটদের তুলনায় ভালো হওয়ায় চার নম্বরে থেকে লিগ শেষ করে অরেঞ্জ আর্মি৷

আরও পড়ুন: সুপার কিংসকে হারিয়ে লিগ শেষ করল কিংস ইলেভেন

মুম্বই ইন্ডিয়ান্স আগেই প্লে-অফে জায়গা নিশ্চিত করেছিল৷ তবু তাদের লক্ষ্য ছিল প্রথম দুইয়ে থেকে সরাসরি কোয়ালিফায়ার খেলা৷ সেই লক্ষ্যে তারা পুরোপুরি সফল৷ ঘরের মাঠে কলকাতাকে বিধ্বস্ত করে লিগ শীর্ষে উঠে আসে মুম্বই৷ চেন্নাই ও দিল্লির মতো তারাও ১৪ ম্যাচে ১৮ পয়েন্ট সংগ্রহ করে৷ তবে শ্রেয়স আইয়ার ও মহেন্দ্র সিং ধোনিদের থেকে মুম্বইয়ের নেট রানরেট ভালো হওয়ায় এক নম্বরে থেকে লিগ শেষ করে রোহিত অ্যান্ড কোং৷

চেন্নাই দু’নম্বরে থেকে প্রথম কোয়ালিফায়ার খেলার টিকিট পেয়ে যায়৷ দিল্লি ক্যাপিটালস রান রেটের নিরিখে পিছিয়ে তৃতীয় স্থানে চলে যায়৷ ফলে তাদের এলিমিনেটর খেলে কোয়ালিফায়ারের যোগ্যতা অর্জন করতে হবে৷ প্রথম কোয়ালিফায়ারে ঘরের মাঠে চেন্নাই খেলবে মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে৷ ভাইজ্যাগে এলিমিনেটরে মুখোমুখি হবে দিল্লি ও হায়দরাবাদ৷

আরও পড়ুন: স্বার্থ-সংঘাত ইস্যুতে বোর্ডকে একহাত নিলেন সচিন

ওয়ামখেড়েতে টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে কলকাতা নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ১৩৩ রান তোলে৷ ক্রিস লিন ৪১, রবিন উথাপ্পা ৪০ ও নীতিশ রানা ২৬ রান করেন৷ মালিঙ্গা ৩টি এবং হার্দিক ও বুমরাহ ২টি করে উইকেট নেন৷

পালটা ব্যাট করতে নেমে মুম্বই ১৬.১ ওভারে মাত্র এক উইকেট হারিয়ে জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় ১৩৪ রান তুলে নেয়৷ কুইন্টন ডি’কক ৩০ রান করে প্রসিদ্ধ কৃষ্ণার বলে আউট হন৷ রোহিত শর্মা ৫৫ ও সূর্যকুমার যাদব ৪৬ রান করে অপরাজিত থাকেন৷ ম্যাচের সেরা হন হার্দিক৷