মুম্বই: চলতি আইপিএলের প্রথম তিন ম্যাচে জয় তুলে নিয়েছে চেন্নাই সুপার কিংস৷ গতবারের শেষ তিনটি ম্যাচের হিসাব মিলিয়ে আইপিএলে টানা ছ’ম্যাচে অপরাজিত ছিল সিএসকে৷ অন্যদিকে এবার ঘরের মাঠে দিল্লির বিরুদ্ধে হার দিয়ে আইপিএল অভিযান শুরু করা মুম্বই ধোনিদের মুখোমুখি হওয়ার আগে তিন ম্যাচে মাত্র একটা জয় পেয়েছিল৷

এই অবস্থায় নিজেদের দূর্গ ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে চেন্নাইয়ের বিজয়রথ থামাল মুম্বই৷ ম্যাচের শুরুটা ভালো না হলেও শেষমেশ ধোনিদের বিরুদ্ধে ৩৭ রানের ব্যবধানে জয় তুলে নিল রোহিত শর্মার নেতৃত্বাধীন মুম্বই দল৷ টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে মুম্বই নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ১৭০ রান তোলে৷ জবাবে চেন্নাই ২০ ওভারে ৮ উইকেটের বিনিময়ে ১৩৩ রানের বেশি সংগ্রহ করতে পারেনি৷

আরও পড়ুন: বিশ্বকাপের দল ঘোষণা কিউয়িদের

ব্যাটিংয়ে মুম্বইকে টানেন সূর্য্যকুমার যাদব ও পান্ডিয়া ভাইরা৷ বল হাতে রোহিতদের জয়ের মঞ্চে বসিয়ে দিতে মুখ্য ভূমিকা নেন মালিঙ্গা-হার্দিক জুটি৷ তাঁদের যথাযোগ্য সঙ্গত করেন জেসন বেহরেনডর্ফ৷ চেন্নাইয়ের হয়ে একক লড়াই চালান কেদার যাদব৷ তবে ধোনিদের জয় এনে দেওয়ার জন্য যথেষ্ট ছিল না তাঁর প্রচেষ্টা৷

ইনিংসের শুরুতেই ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে মুম্বই৷ বড় রান করতে ব্যর্থ দুই ওপেনার কুইন্টন ডি’কক ও রোহিত শর্মা৷ যুবরাজ সিং রং ছড়াতে পারেননি৷ একসময় স্কোর বোর্ডে মুম্বই দেড়শো রান তুলতে পারবে কি না, তা নিয়ে ঘোর সংশয় দেখা দিয়েছিল৷কুইন্টন ডি’কক মাত্র ৪ রান করে দীপক চাহারের বলে কেদার যাদবের হাতে ধরা পড়েন৷ রোহিত ১৩ রান করে জাদেজার বলে ধোনির দস্তানায় ধরা পড়ে যান৷ যুবরাজ ৪ রান করে তাহিরের বলে বাউন্ডারি লাইনে রায়ডুকে ক্যাচ দেন৷

আরও পড়ুন: বিশ্বকাপের আগে রাহুল-পান্ডিয়া কাণ্ডের সমাধান চায় বোর্ড

ক্রুণাল পান্ডিয়াকে সঙ্গে নিয়ে সূর্য্যকুমার যাদব চতুর্থ উইকেটের জুটিতে ৬২ রান যোগ করেন৷ ক্রুণাল পান্ডিয়া ৫টি চার ও ১টি ছক্কার সাহায্যে ৩২ বলে ৪২ রান করে আউট হন৷ তাঁকে ফিরিয়ে দেন মোহিত শর্মা৷সূর্য্যকুমার দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৫৯ রান করে ব্র্যাভোকে উইকেট দেন৷ ৪৩ বলের ইনিংসে তিনি ৮টি চার ও ১টি ছক্কা মারেন৷

১৮ ওভারের শেষে মুম্বই ৫ উইকেট হারিয়ে ১২৫ রানে দাঁড়িয়েছিল৷সেখান থেকে শেষ দু’ওভারে পোলার্ড ও হার্দিক যোগ করেন ৪৫ রান৷ ১৯তম ওভারে শার্দুল ঠাকুরের বলে ১৬ রান তোলে মুম্বই৷ ব্র্যাভোর শেষ ওভারে ২৯ রান যোগ করেন হার্দিকরা৷ পোলার্ড ৭ বলে ১৭ ও হার্দিক পান্ডিয়া ৮ বলে ২৫ রান করে অপরাজিত থাকেন৷

আরও পড়ুন: ক্রিকেটে দুর্নীতি রুখতে ইন্টারপোলের হাত ধরল আইসিসি

চেন্নাইও মাত্র ৩৩ রানের মধ্যে টপঅর্ডারের তিনজন ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে বসে৷ ওয়াটসনকে ৫ রানে ফিরিয়ে দেন মালিঙ্গা৷ রায়ু (০) ও রায়নার (১২) উইকেট তুলে নেন আগের রাতে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সে যোগ দেওয়া বেহরেনডর্ফ৷ কেদার যাদবকে সঙ্গ দিয়ে ধোনি দলের ইনিংস টেনে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলেও খুব বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি তাঁর প্রতিরোধ৷ ২১ বলে ১২ রান করে হার্দিক পান্ডিয়ার বলে আউট হন মাহি৷

পরে হার্দিক ফিরিয়ে দেন রবীন্দ্র জাদেজা (১) ও দীপক চাহারকে (৭)৷ মালিঙ্গা তুলে নেন হাফসেঞ্চুরি করা কেদার যাদবের উইকেট৷ সাজঘরে ফেরার আগে কেদার ৮টি চার ও ১টি ছক্কার সাহায্যে ৫৪ বলে ৫৮ রান করেন৷ ডোয়েন ব্র্যাভো ৮ রান করে মালিঙ্গার তৃতীয় শিকার হন৷ ম্যাচের সেরা হয়েছেন হার্দিক৷

আরও পড়ুন: বিশ্বকাপে ভারতের সম্ভাবনা দেখছেন কপিল

মুম্বইয়ের কাছে হেরে লিগ টেবিলের শীর্ষ স্থান খোয়ায় চেন্নাই৷ চার ম্যাচের তিনটিতে জিতলেও নেট রানরেটের বিচারে ধোনিরা পিছিয়ে পড়ে রবিচন্দ্রন অশ্বিনের কিংস ইলেভেন পঞ্জাবের কাছে৷