মুম্বই: নাগরিকত্ব যাচাইয়ে ভোটার আইডি কার্ডই যথেষ্ট। এমনই জানাল মুম্বইয়ের আদালত। সম্প্রতি মু্ম্বই পুলিশ দুই ব্যক্তিকে বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারী বলে চিহ্নিত করে গ্রেফতার করে। তাঁদের আদালতে তোলা হলে বেকসুর খালাস করে আদালত।

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন তৈরি করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। সেই আিনের প্রতিবাদে এখনও দেশজুড়ে আন্দোলন-প্রতিবাদ চলছে। মোদী সরকারের বিরুদ্ধে বিভাজনের রাজনীতির অভিযোগ তুলে সরব হয়েছে বিজেপি বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি।

সিএএ বাতিলের দাবিতে দিল্লির শাহিনবাগে গত ডিসেম্বর মাসের মাঝামাঝি থেকে আন্দোলন করছেন মহিলারা। অনুপ্রবেশকারীদের রুখতেই সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন তৈরি হয়েছে বলে দাবি কেন্দ্রের। সম্প্রতি দুই ব্যক্তিকে বাংলাদেশী অনুপ্রবেশকারী বলে চিহ্নিত করে আদালতে পেশ করে মুম্বই পুলিশ।

ধৃতদের ভোটার আইডি কার্ড ছিল। সেই কার্ড দেখেই তাঁদের বেকসুর খালাস করে দেয় মুম্বইয়ের আদালত। একইসঙ্গে আদালত জানিয়েছে, নাগরিকত্ব প্রমাণের ক্ষেত্রে ভএাটার আইডি কার্ডই যথেষ্ট। ১১ ফেব্রুয়ারি আব্বাস শেখ নামে এক ব্যক্তি ও তাঁর স্ত্রীকে পাসপোর্ট বিধি ভাঙার অভিযোগে আটক করে মুম্বই পুলিশ। পরে তাঁদের আদালতে পেশ করা হয়। বিচারক ওই দম্পতিকে বেকসুর খালাস করার আদেশ দেন।

আদালত ওই মামলায় জানিয়েছে, আধার কার্ড, প্যান কার্ড, ড্রাইভিং লাইসেন্স বা রেশন কার্ডকে নাগরিকত্বের প্রমাণ হিসেবে চিহ্নিত করা না গেলেও বৈধ ভোটার কার্ড থাকলেও ভারতীয় নাগরিকত্ব প্রমাণ করতে কাউকেই কোনও সমস্যা পড়তে হবে না।

আদালত আরও উল্লেখ করেছে, যে ওই দম্পতি তাঁদের আধার কার্ড, প্যান কার্ড, ভোটারকার্ড, পাশবুক, স্বাস্থ্য কার্ড এবং রেশন কার্ড আদালতে জমা দিয়েছিলেন। সরকারের তরফে দেওয়া ওই নথিগুলিই নাগরিকত্বের প্রমাণ।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ