পানাজি: ওডিশার বিরুদ্ধে কোনওরকমভাবে পা হড়কালেই লিগ শিল্ড উইনারের তকমা জুড়ে যেত এটিকে-মোহনবাগানের নামের পাশে। কিন্তু বুধবার ব্যাম্বোলিমের জিএমসি স্টেডিয়ামে স্কাই ব্লু ঝড়ে খড়কুটো পেল না ওডিশা। চলতি আইএসএলে সর্বাধিক ব্যবধানে জয় তুলে নিয়ে লিগ শিল্ড উইনারের লড়াই শেষ ম্যাচ অবধি টেনে নিয়ে গেল সার্জিও লোবেরার মুম্বই সিটি এফসি। ব্যাম্বোলিমে লিগের ‘লাস্ট বয়’ ওডিশাকে হাফ ডজন গোলের মালা পরাল আইল্যান্ডাররা। চলতি টুর্নামেন্টে প্রথম হ্যাটট্রিক করলেন মুম্বইয়ে বিপিন সিং।

বিপিন ছাড়াও মুম্বইয়ের হয়ে জোড়া গোল বার্থোলোমিউ ওগবেচের। অপর গোলটি সাই গড্ডার্ডের। সমীকরণ এমন জায়গায় দাঁড়াল যে শেষ ম্যাচে ড্র করলেই লিগ শিল্ড উইনার হয়ে আগামী মরশুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ খেলবে বাগান। জিতলে তো কথাই নেই। অন্যদিকে শিল্ড উইনারের শিরোপা পেতে হলে হাবাসের দলের বিরুদ্ধে লিগের শেষ ম্যাচ জিততেই হবে মুম্বই সিটি এফসি’কে। স্বাভাবিকভাবে চাপের প্রেসার কুকারে থেকেই যে শেষ ম্যাচে নামবে মুম্বই, সেকথা বলার অপেক্ষা রাখে না। তবে ২৮ ফেব্রুয়ারি টুর্নামেন্টের মেগা ফাইনালের আগেই এক অলিখিত ফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে ব্যাম্বোলিমে।

এবার আসা যাক ম্যাচের কথায়। কার্যত সকলকে অবাক করে এদিন ম্যাচের ৯ মিনিটেই ওডিশা এগিয়ে যায় ম্যাচে। পেনাল্টি থেকে গোল করে দলকে এগিয়ে দেন ব্রাজিলিয়ান দিয়েগো মৌরিসিও। কিন্তু ‘লাস্ট বয়’ রা যে তারকাখোচিত মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে সেই গোল ধরে রাখতে পারবে, আশা করেননি কোনও সবুজ-মেরুন সমর্থকই। কেউ করে থাকলে তাদের সেই ভুল ভাঙে মাত্র চার মিনিট বাদে। জাহৌর ফ্রি-কিক থেকে ফ্লোটিং হেডারে ম্যাচে সমতা ফেরান ওগবেচে। এরপর আর রোখা যায়নি লোবেরার ছেলেদের। যদিও দ্বিতীয় গোল পেতে ৩৮ মিনিট অবধি অপেক্ষা করতে হয় তাদের।

বক্সের মধ্যে বল ধরে ওগবেচের হাফটার্নে নেওয়া শট ওডিশা রক্ষণে আংশিক প্রতিহত হয়। সেই বল ধরে অর্শদীপকে পরাস্ত করে স্কোরলাইন ২-১ করেন টুর্নামেন্টের আবিষ্কার বিপিন সিং। ৪৩ মিনিটে জাহৌর ফ্রি-কিক থেকে ফের হেডে ৩-১ করেন ওগবেচে। পরের মিনিটে বক্সের মধ্যে বল পেয়ে বাঁ-পায়ের জোরালো ভলিতে ৪-১ করেন জাপানি মিডফিল্ডার সাই গড্ডার্ড। টুর্নামেন্টে এটি তাঁর প্রথম গোল।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে ফের গোল মুম্বইয়ের। ওগবেচের পাস থেকে বক্সের মধ্যে বিপিনের নেওয়া শট শিক্ষানবিশী ঢং’য়ে ফস্কান ওডিশা গোলরক্ষক। ৫-১ এগিয়ে যায় মুম্বই। ৬১ মিনিটে মন্দার রাও’য়ের সেন্টারে ঠিকঠাক মাথা ছোঁয়াতে পারলে তখনই হ্যাটট্রিক তুলে নিতে পারতেন বিপিন। কিন্তু সেক্ষেত্রে না হওয়ার ৮৬ মিনিট অবধি অপেক্ষা করতে হয় বিপিনকে। রাওলিন বোর্জেসের জোরালো শট অর্শদীপ রুখে দিলে ফিরতি বল জালে পাঠিয়ে হ্যাটট্রিক সম্পন্ন করেন বিপিন। ৮৩ মিনিটে একটি পেনাল্টি নষ্ট করেন জাহৌ।

জয়ের ফলে ১৯ ম্যাচ শেষে মুম্বইয়ের ঝুলিতে ৩৭ পয়েন্ট। সমসংখ্যক ম্যাচে ৪০ পয়েন্ট বাগানের। দু’দলেরই গোলপার্থক্য ১৫। তাই শেষ ম্যাচে জয় ছাড়া গতি নেই মুম্বইয়ের।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.