নিউজ ডেস্ক: সোমবার সপ্তম দফার ভোট মিটতেই প্রকাশিত হয়েছে এক্সিট পোল। সর্বভারতীয় সংবাদ মাধ্যম ইন্ডিয়া টুডে-র হয়ে সেই সমীক্ষা চালিয়েছিল অ্যাক্সিস মাই ইন্ডিয়া নামক সংস্থা।

ওই সংস্থার সমীক্ষায় অনেক তথ্য রয়েছে ভুলে ভরা। পরিসংখ্যানের ক্ষেত্রেও রয়েছে অনেক ভুল। যা নিয়ে ইতিমধ্যেই বিদ্রুপ করা শুরু করে দিয়েছে নেটিজেনরা। সকলেরই প্রশ্ন হচ্ছে যে ভুলে ভরা তথ্য নিয়ে সমীক্ষা কীভাবে সম্ভব হল? আর সেই সমীক্ষা বিশ্বাস করা হবে কিসের ভিত্তিতে?

উত্তরখণ্ডের পাঁচটি লোকসভা কেন্দ্রের নাম দেওয়া হয়েছে অ্যাক্সিস মাই ইন্ডিয়ার ওয়েবসাইটে। যেগুলি হল- সুদলশহর, করণপুর, সুরাতগড়, গঙ্গানগর এবং রাইসিংনগর। উল্লেখযোগ্য বিষয় হচ্ছে এগুলি সবই বিধানসভা কেন্দ্র, লোকসভা নয়। কিন্তু এগুলিকে লোকসভা বলেই দেখানো হয়েছে অ্যাক্সিস মাই ইন্ডিয়ার ওয়েবসাইটে।

এমনই ভুল তথ্য চোখে পড়েছে দক্ষিণের রাজ্যের বিষয়েও। দক্ষিণ ভারতের বড় রাজ্য তামিলনাড়ুতে ডিএমকে-র সঙ্গে জোত করে লড়াই করছে কংগ্রেস। ওই রাজ্যের ত্রিভাল্লুর কেন্দ্র থেকে কংগ্রেস প্রার্থি জিততে পারেন বলে দাবি করেছে অ্যাক্সিস মাই ইন্ডিয়া। কিন্তু ওই কেন্দ্রে কংগ্রেস প্রার্থীই দেয়নি। জোট শরিক ডিএমকে প্রার্থী ওই কেন্দ্র থেকে লড়ছেন।

এই ধরণের মারাত্মক ভুলের ছবি ধরা পড়েছে সিকিমের ক্ষেত্রে। অ্যাক্সিস মাই ইন্ডিয়ার সমীক্ষা অনুসারে, সিকিম ডেমোক্র্যাটিক ফ্রন্ট ৪৪ শতাংশ ভোট পেতে চলেছে। অন্যদিকে বিরোধী সিকিম ক্রাক্তিকারি মোর্চা ৪৪ শতাংশ ভোট পেতে পারে বলে দাবি করা হয়েছে অ্যাক্সিস মাই ইন্ডিয়ার সমীক্ষায়। একই সঙ্গে ওই সমীক্ষাতেই আবার বলা হচ্ছে যে সিকিমের একটিমাত্র লোকসভা আসন যেতে চলেছে সিকিম ডেমোক্র্যাটিক ফ্রন্টের দখলে। বিরোধী দলের থেকে দুই শতাংশ ভোট কম পেয়েও কী করে আসন দখল করবে সিকিম ডেমোক্র্যাটিক ফ্রন্ট?

এই সকল বিষয় নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় চর্চা শুরু হতেই অনেক ত্রুটি সংশোধন করে নেওয়া হয়েছে। যদিও স্ক্রিনশট নিয়েই অ্যাক্সিস মাই ইন্ডিয়ার সমীক্ষা নিয়ে সমালোচনা শুরু করে দিয়েছে নেটিজেনরা।

অ্যাক্সিস মাই ইন্ডিয়া দাবি করেছে যে India Today-র সমীক্ষা পশ্চিমবঙ্গে ১৯ থেকে ২৩টি আসনে এগিয়ে রাখছে বিজেপিকে। আর তৃণমূলকে এগিয়ে রাখছে ১৯ থেকে ২২ টি আসনে। যা রাজনৈতিক মহলে রীতিমত সারপ্রাইজিং। যদিও এই সমীক্ষা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এক্সিট পোল প্রকাশিত হতেই তিনি ট্যুইট করে দাবি করেছিলেন যে এক্সিট পোল আসলে বিজেপির বিরোধী ঐক্য ভাঙার ষড়যন্ত্র।