মইনপুরী: বছর ২৪ পর ফের একমঞ্চে মুলায়ম-মায়াবতী৷ নিজের নির্বাচনী সভায় মায়াবতীকে স্বাগত জানালেন মুলায়ম সিং যাদব৷

অতীতের তিক্ততা ভুলে মুলায়মের গলায় আবেগের ভাষণ৷ মায়া জানালেন, মুলায়ম যাদব পিছিয়ে পড়া জাতির আসল নেতা৷ মোদীর মত ভুয়ো নন৷

১৯৯৫ এর পর এদৃশ্য দেখা যায়নি৷ সাইকেলের সওয়ারি মুলায়মের হয়ে ভোট চাইছেন হাতির চালক মায়াবতী৷ উলটে দেখা গিয়েছে উলটো ছবি৷ কিন্তু রাজনীতিতে সবই সম্ভব৷ তারই বাস্তব রূপ আজ মইনপুরীতে আরও একবার দেখা গেল৷

এদিন প্রচারের শুরুতেই ভাষণ দেন সপার প্রাক্তন প্রধান ও নেতাজী মুলায়ম সিং যাদব৷ তিনি বলেন, ‘‘মায়াবতীজীকে অনেক ধন্যবাদ এই সভায় যোগ দেওয়ার জন্য৷ সময়ের দাবি মেনে উনি সপার হাত ধরেছেন৷ ওনার কাছে আমি কৃতজ্ঞ৷’’ প্রচারে বক্তব্য রাখার সময় বর্ষিয়ান নেতা আজ আবেগতাড়িত ছিলেন৷ বলেন, ‘‘শেষবার আমি ভোটে লড়ছি৷ আমার প্রার্থনা থাকবে বেশি ভোটের ব্যবধানে আমাকে জেতান আপনারা৷’’ অপোক্ত শরীরে স্বল্প ভাষণেই ভোটারদের কাছে নিজের কথা তুলে ধরেন মুলায়ম সিং যাদব৷

নেতাজীর পরই মঞ্চে ভাষণ দিতে ওঠেন মায়াবতী৷ বিজেপিকে আক্রমণের সঙ্গেই বহেনজীর নিশানায় ছিল কংগ্রেসও৷ সপা-বসপা জোটের প্রয়োজনীতার কথা ভরা জনসভায় তুলে ধরেন তিনি৷ জানান, ‘‘মানুষ ও দেশের স্বার্থে কখনও কখনও কঠীন সিদ্ধান্ত নিতে হয়৷ এই সিদ্ধান্তের ভিত্তিতেই আগামীর পথ চলতে হয়৷ তাই সপা-বসপা জোট গড়তে হয়েছে৷’’ ভূয়সী প্রশংসা করেন উত্তরপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ও একদা শত্রু মুায়ম সিং যাদবের৷

মইনপুরীর প্রচারে প্রধানমন্ত্রী মোদীর সমালোচনা করে মায়াবতী বলেন, ‘‘কেন্দ্রে যে সরকার চলছে সেটা সাধারণ মানুষের স্বার্থ বিরোধী৷ দেশ আজ গভীর সঙ্কটের মুখোমুখি৷ তাই আগামী লোকসভা ভোটে বিজেপিকে একটাও ভোট দেবেন না৷ বোট দিন পিছিয়ে পড়া জনজাতির কাজে যিনি সমগ্র জীবন দিয়ে কাজ করলেই সেই মুলায়ম সিং যাদবকে৷ মোদী ভুয়ো পুছড়ে বর্গের নেতা৷ আম আদমির আসল নেতা মুলায়ম সিং যাদব৷’’

কংগ্রেস চাইলেও মহাজোটে সামিল করা হয়নি রাহুলের দলকে৷ তবে আগামী দিনে সর্বভারতীয় রাজনীতির কথা মাথায় রেখে রাহুল ও সোনিয়া গান্ধীর নির্বাচনী কেন্দ্র আমেঠি ও রায়বেরেলিতে কোনও প্রার্থী দেয়নি ‘বুয়া-বাবুয়া’৷ তাতে অবশ্য প্রচারে ছেড়ে কথা বলা হচ্ছে না হাত শিবিরকে৷ এদিনের প্রচারে কংগ্রেসের সমালোচনায় মুখর হন বহুজন সমাজবাদী নেত্রী মায়াবতী৷ কটাক্ষ করেন কংগ্রেসের ‘ন্যায়’ প্রকল্পের৷ তাঁর কথায় ‘‘পিছিয়ে পড়া সমাজের ভোটারদের প্রভাবিত করতেই ন্যায় প্রকল্পের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে কংগ্রেস৷ আসলে এই প্রকল্প একটা ভাঁওতা

রাজনৈতিক মহলের মতে, সপা-বসপার প্রধান ভোট ব্যাংক পিছিয়ে পড়া জনজাতি৷ কংগ্রেসের বিরোধীতা করে যা অটুট রাখতে চাইলেন মায়াবতী৷ অন্যদিকে, মোদী সরকারের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলে বোঝানোর চেষ্টা করলেন উত্তরপ্রদেশে গেরুয়া শিবিরের বিকল্প মায়া-অখিলেশ জোট৷

মোদী বিরোধীতায় সরব বিরোধী রাজনৈতিক শিবির৷ দিল্লির মসনদে পরিবর্তনের স্লোগান তাদের মুখে৷ সেই পরিবর্তনের সাপেক্ষেই ২৪ বছর পর মায়া-মুলায়ম পাশাপাশি৷ উত্তরপ্রদেশের রাজনীতিতে কী তবে বদলের ইঙ্গিত? উত্তর লুকিয়ে সময়ের গর্ভেই৷