বারাকপুর: গত কয়েকদিন আগেই বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন ভাটপাড়ার বিধায়ক অর্জুন সিং। এরপরে জল্পনা উঠতে থাকে যে এরপরেই হয়তো বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন মুকুল-পুত্র শুভ্রাংশু। যদিও এরপরেই তড়িঘড়ি সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে শুভ্রাংশু দাবি করেন যে, তিনি তৃণমূলের সৈনিক। নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে কাজ করে যাবেন বলে জানান মুকুল-পুত্র। একই সঙ্গে বারাকপুরের লোকসভা কেন্দ্রের প্রার্থী দিনেশ ত্রিবেদীকে তাঁর বিধানসভা কেন্দ্র অর্থাৎ বীজপুরে যে লিড দেওয়াবেন সেটাই জানিয়ে দেন শুভ্রাংশু।

একদিকে যখন তৃণমূলের একনিষ্ঠ সৈনিক হিসাবে নিজেকে প্রমাণ করতে মরিয়া শুভ্রাংশু অন্যদিকে তখন বিজেপিতে তাঁকে স্বাগত জানালেন কেন্দ্রীয় নেতা রাহুল সিনহা। শনিবার উত্তর ২৪ পরগনার নৈহাটিতে দলীয় কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছিলেন বিজেপি নেতা রাহুল সিনহা । সেখানে দলীয় কর্মসূচির শেষে সাংবাদিকদের রাহুল সিনহা বলেন, শুভ্রাংশুর তৃণমূলে মোহভঙ্গ হবেই । ও দলে আসতে চাইলে আমরা স্বাগত জানাব । তবে আমরা কাউকে আমন্ত্রণ দিয়ে দলে ডাকি না। কেউ অন্তর থেকে বিজেপিতে আসতে চাইলে আসতেই পারেন বলে দাবি রাহুল সিনহার। আর সেভাবেই শুভ্রাংশু রায়ও স্বাগত বলে জানান তিনি।

আসন্ন লোকসভা নির্বাচন ইস্যুতে বারাকপুর লোকসভা কেন্দ্র নিয়ে এই সাংগঠনিক বৈঠক করেন রাহুলবাবু। সাংগঠনিক বৈঠকে স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্ব উপস্থিত ছিলেন। প্রসঙ্গত লোকসভা নির্বাচনের দিন ঘোষণার পরেই নিজেদের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করে তৃণমূল। বাংলায় গত নির্বাচন কিংবা উপনির্বাচন গুলিতে সংখ্যার নিরিখে বিজেপি দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছে।

কিন্তু এখনও পর্যন্ত প্রার্থী তালিকা ঘোষনা করতে পারেননি মুকুল-দিলীপরা। সূত্রের খবর বারাকপুর কেন্দ্রে বিজেপির টিকিটে প্রার্থী হচ্ছেন অর্জুন সিং । অপেক্ষা শুধু বিজেপির দলীয় শীলমোহরের। যদিও শনিবার কলকাতায় পৌঁছেই অর্জুন সিং জানান, লোকসভা ভোটে টিকিট পেতে তিনি নাকি বিজেপিতে আসেননি।