হাওড়া: নির্বাচনে রিটার্নিং অফিসারের ভূমিকায় যারা আছে তারা সবাই রাজ্য সরকারের আধিকারিক৷ যেমন কোচবিহারে যিনি জেলা রিটার্নিং অফিসার রয়েছেন, তাঁর নেতৃত্বে পঞ্চায়েত ভোটে বিরোধীরা ৭০ শতাংশ মনোনয়ন দিতে পারেনি৷ এমনটাই দাবি করলেন বিজেপি নেতা মুকুল রায়।

শুক্রবার হাওড়ায় গিয়ে মুকুল রায় বলেন, সেই অফিসারই ডিপ্লয়মেন্ট দেখছেন৷ তিনি দেখলে যা হওয়ার সেটাই কোচবিহারে ঘটেছে৷ অতএব নির্বাচন কমিশনকে ভীষণভাবে সচেতন হতে হবে৷ এইভাবে নির্বাচন কমিশনকে বার্তা দিয়েছেন বিজেপি নেতা মুকুল রায়৷

তিনি আরও বলেন, ‘‘বাংলার পুলিশের হাতে ভোট কতটা সুনিশ্চিত সেটা আমরা পঞ্চায়েত নির্বাচনে দেখেছি৷ আমাদের বারংবারের দাবি মানুষকে ভোটাধিকার প্রয়োগ করার সুযোগ করে দিতে হবে৷ এটা রাজ্য সরকারের আধিকারিকদের হাতে কোনও মতে সম্ভব নয়৷ বৃহস্পতিবার যে সব বুথে ভোট হয়েছে, তার মধ্যে বহু বুথে আধা সামরিকবাহিনী ছিল না৷ সেই সব বুথে লুট হয়েছে৷ আমরা দাবি করছি পুনর্নির্বাচন করা হোক এবং সমস্ত বুথে আধা সামরিকবাহিনীকে রেখে নির্বাচন প্রক্রিয়া শেষ করা হোক৷’’

তাঁর মতে, ‘‘ভোটে সাংগঠনিক দিক থেকে লড়াই হয় না৷ এটা মারামারির জায়গা নয়৷ ভোট করবে নির্বাচন কমিশন, পাহারে দেবে আধা সামরিকবাহিনী ও মানুষ ভোট দেবে৷ এটাই হল নির্বাচন প্রক্রিয়া৷ এখানে আমি আমার দলবল নিয়ে মারামারি করব আরেকজন তার দলবল নিয়ে মারামারি করবে এইভাবে কোনও নির্বাচন প্রক্রিয়া হতে পারে না৷’’

শুক্রবার দুপুরে হাওড়ায় সদর লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী রন্তিদেব সেনগুপ্ত জেলাশাসকের দফতরে তাঁর মনোনয়নপত্র জমা দেন। মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার আগে কয়েকশো কর্মী সমর্থক মিছিল করে হাওড়া ময়দান ফ্লাইওভার চত্বরে আসেন। রামরাজাতলায় মন্দিরে পুজো দেন প্রার্থী। এরপর ডুমুরজলা থেকে মিছিল শুরু হয়। মিছিলে উপস্থিত ছিলেন মুকুল রায়, সঞ্জয় সিং সহ বিজেপি নেতারা। সেখানেই মুকুল রায় এই কথা জানান৷

বিজেপি প্রার্থী রন্তিদেব বলেন, ‘‘আমরা নির্বাচন কমিশনের কাছে দাবি রাখছি প্রতিটি বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনী দিয়ে নির্বাচন করাতে হবে। আমরা যেভাবে মানুষের সাড়া পাচ্ছি তাতে জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী আমি।’’

প্রসঙ্গত শুক্রবার দুপুরে পুনর্নিবাচনের দাবিতে কলকাতার ইলেকশন কমিশন অফিসের সামনে অবস্থান বিক্ষোভ৷ বিক্ষোভ দেখান বিজেপির নেতা কর্মীরা৷ প্রায় এক ঘণ্টা পরে তারা অবস্থান তুলে নেন৷ বিজেপি নেতা জয় প্রকাশ মজুমদারের নেতৃত্বে দলের কর্মীরা মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিকের অফিসের সামনে আসেন৷

নির্বাচন কমিশনের অফিসের ভিতর ঢুকে যান মুকুল রায় সহ একাধিক বিজেপি নেতা। সূত্রের খবর, ভিতরে ঢুকে তাঁরা বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। মুখ্য নির্বাচন আধিকারিক আরিজ আফতাবের অপসারণ দাবি করেন তাঁরা। এই ঘটনার পর কমিশনের অফিসে নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে। অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।