স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: এক নয়, দুই নয়, গুনে গুনে ১০৭ জন বিধায়কের নাম রয়েছে মুকুল রায়ের হাতের ওই কাগজে। রাজ্য রাজনীতিতে এখন সব থেকে বড় প্রশ্ন – করে কার নাম আছে মুকুলেই ওই কাগজে।

শনিবার সাংবাদিক সম্মেলনে মুকুল রায় বোমা ফাটালেও ওই কাগজ রিপোর্টারদের হাতে দেননি। তবে অনেকেই মনে করছেন, কাঁচড়াপাড়া এবং হালিশহর পুরসভা বিজেপির হাত থেকে ফের তৃণমূলের হাতে চলে যাওয়ার পর বেশ ক্ষেপে গিয়েছেন মুকুল। তার উপর, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভাইপো অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় যা বলেছেন তা শুনে মুকুল আরও উত্তেজিত হয়েছেন। শেষে, কাগজে সেই তালিকা দেখতে বাধ্য হয়েছেন।

পড়ুন: আমাদের যেদিন গিয়েছে, সেদিন একেবারেই কি গিয়েছে’ , প্রশ্ন চন্দ্রিমার

প্রসঙ্গত বলে রাখা প্রয়োজন, অভিষেক বলেছেন, “ঘরে নেই নুন, ছেলে আমার মিঠুন।” কার ঘরে নুন নেই, বা কার ছেলে মিঠুন তা রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের কাছে পরিষ্কার হয়ে গিয়েছে। অনেকেই অপেক্ষা করছিলেন, মুকুলের পালটা জবাবের। কাগজে তালিকা দেখিয়ে যার জবাব দিলেন মুকুল।

এক তৃণমূল নেতা অবশ্য বলছেন, লোকসভা নির্বাচনে মোদীবাবু তো বলে গিয়েছিলেন ৪০ জন বিধায়ক নাকি ব্যয়ের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন। এখন মুকুল বলছে ১০৭ জন। ওদের কে যে বড় নেতা বলা কঠিন। অন্যদিকে মুকুল ঘনিষ্ঠ এক বিজেপি নেতার বক্তব্য, দাদার মোবাইল দেখলে বোঝা যাবে কত লোক ফোন করছেন। সবার সঙ্গেই কথা বলছেন মুকুলদা। তৃণমূল কি রকম জায়গা তা মুকুল রায়ের থেকে বেশি কে বোঝে।

পড়ুন: ‘তৃণমূলের বহু নেতাকেই জেলে পাঠানো হবে’, বিস্ফোরক রাহুল সিনহা

 

ওই কাগজে কার কার নাম আছে? শনিবার মুকুলের জবাব, বেসিরভাগই তৃণমূলের বিধায়ক। তবে কংগ্রেস – সিপিএমও আছে।