স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: টুইটারে নিজের অস্তিত্ব জানান দিলেন বিজেপি নেতা মুকুল রায়। বুধবার দু-দুটি টুইট করেছেন তিনি। হেমতাবাদের বিজেপি বিধায়ক দেবেন্দ্রনাথ রায়ের মৃত্যুর পর তৃণমূলকে টুইটারে নিশানা করেছিলেন মুকুল রায়। তারপরই আচমকা উধাও হয়ে যায় মুকুল রায়ের টুইটার অ্যাকাউন্ট। বিজেপি নেতার এহেন পদক্ষেপেই তুমুল জল্পনা রাজ্য রাজনীতিতে।

কেন নিজের টুইটার অ্যাকাউন্ট মুছে দিলেন মুকুল? কিন্তু বুধবার সমস্ত জল্পনা উড়িয়ে দু-দুটি টুইট করেছেন মুকুল। প্রথম টুইটে লিখেছেন, “আমি টুইটারে আছি এবং আরও বহু মানুষের কাছে পৌঁছতে চাই। আমার টুইটার হ্যান্ডেলের প্রযুক্তিগত সমস্যার সমাধান করা হচ্ছে। সবাইকে আর শুভকামনা।”

পরের টুইটটিতে তিনি মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। প্রসঙ্গত, বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পরই মুকুল রায় টুইটারে সক্রিয় ছিলেন। @MukulR_Official থেকে লাগাতার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বিঁধতেন মুকুল রায়। থাকত নরেন্দ্র মোদীর প্রশংসা। কম করে ৭২ হাজার টুইট করেছিলেন বিজেপি নেতা।

কিন্তু সম্প্রতি লকডাউনে সে ভাবে টুইটারে সক্রিয় থাকতে দেখা যায়নি মুকুল রায়কে। তাছাড়া, দলেও ইদানীং সেভাবে সক্রিয় হতে দেখা যায়নি তাঁকে। অমিত শাহের ভার্চুয়াল সভায় সেই অর্থে সরবও হননি। মেপে তৃণমূল বিরোধিতা করেছেন।

এমনকি রাজ্য অফিসে যাননি। ভাষণ দেওয়ার হলে সল্টলেকের অফিস থেকে দিয়েছেন। দলের কর্মীদের মধ্যে প্রশ্ন ওঠে, সব নেতারাই রাজ্য অফিসে যখন আসছেন, তখন মুকুল রায়ের দেখা নেই কেন? বিধায়ক মৃত্যু নিয়েও দলের অবস্থানের উল্টো দিকে মুকুল।

বিজেপি দাবি করছে, সিবিআই তদন্ত। মুকুল চেয়েছেন বিচারবিভাগীয়। সবমিলিয়ে বিজেপিতে মুকুলের বর্তমান অবস্থান নিয়ে যখন জল্পনা চলছে, ঠিক তখনই নিজের অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্ট ডিলিট করে দিলেন বিজেপি নেতা। তবে আপাতত সেই জল্পনার অবসান মুকুল নিজেই ঘটালেন।

প্রশ্ন অনেক: তৃতীয় পর্ব