স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা : বিজেপির সভা বানচাল করার ছক কষেছে তৃণমূল কংগ্রেস৷ তাই উত্তর ২৪ পরগনার বিভিন্ন জায়গায় অবরোধ করছে রাজ্যের শাসক দল৷ এমনই বিস্ফোরক অভিযোগ করলেন মুকুল রায়৷ শুক্রবার দমদম বিমানবন্দরে দাঁড়িয়ে এমন অভিযোগ করলেন তিনি৷

বস্তুত, ১০ নভেম্বর কলকাতার রানি রাসমনি রোডে দলের এই মেগা সমাবেশ ঘিরে অনেকদিন ধরেই প্রস্তুতি নিচ্ছেন বিজেপি নেতারা৷ কিন্তু সেই সভার আকর্ষণ আরও বাড়ে নভেম্বরের তিন তারিখের পর৷ সেদিন মুকুল রায় বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর রাজ্য রাজনীতিতে এই সভাই আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে চলে আসে৷ তার উপর গত সোমবার কলকাতায় এসে বিজেপির রাজ্য সদর দফতরে এসে মুকুল রায় একটি ফাইল দেখিয়েছেন৷ সেই ফাইলে নাকি তৃণমূলের বিরুদ্ধে অনেক তথ্য আছে৷ সেই সবই আজকের সভায় বলতে চান বিজেপির মুকুল৷ ফলে সকলেই জানতে চান, আজ তৃণমূলের বিরুদ্ধে ঠিক কী বলবেন মুকুল৷

স্বাভাবিকভাবেই তাই বিজেপির এই সভা ঘিরে আগ্রহ তুঙ্গে৷ সভা সফল করতে বিজেপি তো বটেই মুকুলের অনুগামীরাও কয়েকদিন ধরে কোমর বেঁধেছেন৷ মুকুল রায়ের বাড়ি কাঁচরাপাড়া থেকে বহু মানুষ আসতে পারেন বলেও খবর পাওয়া যাচ্ছিল৷ কিন্তু সেই কৌশল অনেকটাই ধাক্কা খেল শুক্রবার সকালে৷ এদিন সকাল থেকেই কাঁচরাপাড়া ও হালিশহরে ট্রেন অবরোধ হয়৷ লোকাল ট্রেনে মহিলা কামরা বাড়ানোর প্রতিবাদে এই অবরোধ করেন নিত্যযাত্রীরা৷ যদিও এই অবরোধের পিছনে তৃণমূল কংগ্রেসের যোগ দেখছেন মুকুল রায়৷ তাঁর অভিযোগ, সভায় আসতে বাধা দিতেই এই অবরোধ করা হয়৷ এটা গণতন্ত্রের পক্ষে স্বাস্থ্যকর নয় বলেই দাবি করেছেন তিনি৷

এদিকে বিজেপি কর্মীদের অভিযোগ, শুধু কাঁচরাপাড়া বা হালিশহর নয়৷ রাজ্যের আরও বেশ কিছু জায়গাতেও আটকানো বিজেপি কর্মীদের৷ কোথাও অবরোধ করা হয়েছে৷ কোথাও বাস বা গাড়িতে ভাঙচুর করা হয়েছে৷ আবার মালিকদের ভয় দেখিয়ে গাড়ি আটকে দেওয়া হয়েছে৷

যদিও এই অভিযোগ মানতে নারাজ তৃণমূল৷ তাঁদের এক নেতার বক্তব্য, বিজেপি এখনও এ রাজ্যে সংগঠনই তৈরি করতে পারেনি৷ মানুষের সমর্থন তাদের পাশে নেই৷ ফলে সভায় ভিড় হওয়ার কোনও প্রশ্নই নেই৷ তা বুঝতে পেরেই এখন এসব বলতে শুরু করেছেন বিজেপির নেতারা৷