স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: ‘মুখ্যমন্ত্রীকেই বলছি’-শীর্ষক পুস্তিকার উদ্বোধন করলেন সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র৷ আজ, বৃহস্পতিবার বিধানসভায় বাম পরিষদীয় দলের এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কংগ্রেসের পরিষদীয় তথা বিরোধী দলনেতা আব্দুল মান্নানও৷ বাম পরিষদীয় দলের বর্তমান নেতা সুজন চক্রবর্তী গত তিন বছরে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে রাজ্যের নানা বিষয়ে প্রতিকার চেয়ে বহু চিঠি দিয়েছেন৷

তার একটিরও জবাব না পাওয়ায় সেই অভিযোগ এদিন সঙ্কলিত আকারে প্রকাশ করা হল৷ এদিন বিধানসভা ভবনের নৌসাদ আলি কক্ষে বই প্রকাশিত হয়৷ এই সভায় সিপিআই, ফরওয়ার্ড ব্লক ও আরএসপি’র রাজ্য সম্পাদক হিসেবে স্বপন বন্দ্যোপাধ্যায়, নরেন চট্টোপাধ্যায় ও বিশ্বনাথ চৌধুরী সহ বাম ও কংগ্রেস শিবিরের অন্যান্য বিধায়করাও ছিল৷

তৃণমূলের জনসংযোগ কর্মসূচিকে পাল্টা আক্রমণ করেই এখন পরপর নানা কৌশল সাজাচ্ছে সিপিএম। ইতিমধ্যেই তৃণমূলের ‘দিদিকে বলো’র জবাবে সিপিএম এবং কংগ্রেস পাল্টা শুরু করেছে ‘দিদিকে বলছি’। তাকেই এ বার নিয়ে যাওয়া হল বিধানসভার কক্ষে৷ প্রাথমিক ভাবে বাম ও কংগ্রেস শিবিরের পরিকল্পনা, যে দিন যে ভাবে সম্ভব হবে, ‘মুখ্যমন্ত্রীকে বলছি’র প্ল্যাকার্ড ঝুলিয়ে অধিবেশনে ঢোকার চেষ্টা করবেন বিরোধী বিধায়কেরা। সেখানে লেখা থাকবে রাজ্যের নানা প্রাসঙ্গিক ও জ্বলন্ত সমস্যার কথা। মুখেও সরব হবেন তাঁরা। কংগ্রেসের সচেতক মনোজ চক্রবর্তীর কথায়, ‘‘যৌথ ভাবেই আমাদের আন্দোলন চলবে।’’

এদিন প্রায় তিন বছর পর বিধানসভায় পা রাখলেন সূর্যকান্ত মিশ্র৷ এই তিনবছরে পেনশন সংক্রান্ত কাজে একবার মাত্র বিধানসভায় গিয়েছিলেন তিনি৷ উল্লেখ্য, ২০১১ সাল থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত বিধানসভার বিরোধী দলনেতার পদে ছিলেন। ২০১৬ সালের ভোটে পরাজিত হওয়ায় পরিষদীয় রাজনীতি ছেড়ে সিপিএমের রাজ্য সম্পাদকের দায়িত্বই পালন করছেন সূর্যকান্ত মিশ্র। বাম পরিষদীয় দলের বিশেষ আমন্ত্রণে তিনি বৃহস্পতিবার আবার পা রাখলেন বিধানসভায়।