ভোপাল: ফের বিতর্ক তৈরি করলেন কংগ্রেস নেতা দিগ্বিজয় সিং। লাভ জিহাদ নিয়ে উত্তাপের মাঝেই তাঁর কটাক্ষ রাজনীতির আবহাওয়ার তাপমাত্রা বেশ খানিকটা বাড়িয়ে তুলেছে।

এদিন দিগ্বিজয় বলেন যদি কোনও মুসলিম যুবক হিন্দু মেয়েকে বিয়ে করে, তবে বিজেপির ভাষায় তা লাভ জিহাদ। কিন্তু বিজেপি নেতা শাহনওয়াজ হুসেন বা মুক্তার আব্বাস নকভির স্ত্রীরা তো হিন্দু। এটাও কি তাহলে লাভ জিহাদ? প্রশ্ন মধ্যপ্রদেশের এই কংগ্রেস নেতার। এরপরেই বিতর্ক ছড়িয়েছে।

তিনি বলেন মোদী ক্যাবিনেটের দুই গুরুত্বপূর্ণ সদস্য শাহনওয়াজ হুসেন ও মুক্তার আব্বাস নকভি। এঁরাও কি লাভ জিহাদ করেছেন? এঁদের ব্যাপারে বিজেপি কি ব্যাখ্যা দেবে। প্রশ্ন করেন তিনি।

বিজেপিকে একহাত নিয়ে তাঁর দাবি গেরুয়া শিবিরে কোনও আদর্শ নেই, কোনও ইস্যু তুলে ধরে তা সমাধানের ক্ষমতা নেই। তাই ধর্মের জুজু দেখিয়ে হিন্দু মুসলিম সমস্যা তৈরির চেষ্টা করে চলেছে। হিন্দু মুসলিমের নামে মানুষকে ক্ষেপিয়ে তোলাই লক্ষ্য বিজেপির। এইভাবেই ভোট পেতে চাইছে ওরা। কিন্তু কংগ্রেস সেই সস্তার রাজনীতি করে না। বিজেপির এই ধর্মান্ধতার কড়া নিন্দা করছে কংগ্রেস।

দিন কয়েক আগেই বিজ্ঞাপনে ‘লাভ জিহাদ’ দেখানোর অভিযোগ ওঠে জনপ্রিয় জুয়েলারি ব্র্যান্ড তানিষ্কের বিরুদ্ধে। ওই বিজ্ঞাপনকে কেন্দ্র করে সোস্যাল মিডিয়ায় রীতিমত তোলপাড় হয়। টাইটান গ্রুপের তানিস্ক জুয়েলারির ওই বিজ্ঞাপনে এক ভিনধর্মী বিবাহিত দম্পতিকে দেখানো হয়। অর্থঅৎ এক মুসলিম পরিবারের মেয়ের বিয়ে হয়েছে হিন্দু পরিবারে। আর তা নিয়েই সমস্যা নেটিজেনদের।

‘বয়কট তানিস্ক’ হ্যাশট্যাগ দিয়ে সোস্যাল মিডিয়ায় এই প্রতিবাদেই জোর প্রচার। আসলে নতুন গয়নার বিজ্ঞাপনটির শিরোনাম হল ‘একাত্মম’। কিন্তু প্রায় ১৭ হাজারেরও বেশি লোক বিজ্ঞাপনটি বয়কট, নিষেধাজ্ঞার দাবিতে এমন সব মন্তব্য করেছে যার জেরে শেষমেষ সেটি সরিয়ে নিয়েছে তানিস্ক।

গত ৯ অক্টোবর রিলিজ হওয়া বিজ্ঞাপনটিতে দেখানো হয়েছে, এক মুসলিম পরিবার তাদের সন্তানসম্ভবা হিন্দু পুত্রবধূর প্রথামাফিক বেবি শাওয়ারের তোড়জোড় করছে। চলছে ঘর সাজানো। মেয়েটি তার মা’কে প্রশ্ন করছে যে, ‘এরকম অনুষ্ঠান তো আমাদের বাড়িতে হয় না?’ মায়ের উত্তর, ‘মেয়েকে খুশি রাখার অনুষ্ঠান সব বাড়িতেই হয়।’ ধর্ম নির্বিশেষে একাত্ম হওয়ার বার্তাই দেওয়া হয়েছে ওই বিজ্ঞাপনে।

বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে জুয়েলারি ব্র্যান্ডটি ‘লাভ জিহাদ’, ‘মেকি ধর্মনিরপেক্ষতা’র প্রচার করছে, এমন অভিযোগ উঠেছে। বিরূপ প্রতিক্রিয়ার জেরে বিজ্ঞাপনের ইউটিউব লিঙ্কটি প্রাইভেট করে দেওয়া হয়। গোটা ব্যাপারে তানিস্কের প্রতিক্রিয়া মেলেনি। মুসলিম যুবকরা প্রেমের ফাঁদে জড়িয়ে হিন্দু মেয়েদের প্রথমে বিয়ে, পরে জোর করে ইসলামে ধর্মান্তরিত করছে, এই অভিযোগ তোলা হয়ে থাকে ‘লাভ জিহাদ’ কথাটির মাধ্যমে।

জেলবন্দি তথাকথিত অপরাধীদের আলোর জগতে ফিরিয়ে এনে নজির স্থাপন করেছেন। মুখোমুখি নৃত্যশিল্পী অলোকানন্দা রায়।