মুম্বই: ভারতের শিল্পপতি মুকেশ অম্বানি উঠে এলেন বিশ্বের পঞ্চম ধনীর জায়গায়। ফোর্বস ম্যাগাজিনের দেওয়া ধনীদের তালিকা অনুসারে তেল থেকে টেলিকম বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিরাজমান রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের কর্তা মুকেশ অম্বানি আমেরিকান ইনভেস্টর ওয়ারেন বাফেটকে টপকে গিয়ে পঞ্চম স্থানে।

ফোর্বসের হিসাব অনুসারে অম্বানির সম্পদের পরিমাণ ৭৫ বিলিয়ন ডলার (৫.৬১ লক্ষ কোটি টাকা)। বর্তমানে মুকেশ আম্বানি রয়েছেন ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা এবং সিইও মার্ক জুকারবার্গের ঠিক তলার। জুকারবার্গের মোট সম্পদ ৮৯ বিলিয়ন ডলার।

তিনি রয়েছেন ফোবসের ধনীদের তালিকায় চতুর্থ স্থানে। ওই তালিকায় একেবারে শীর্ষে রয়েছেন আমাজনের জেফ বিজোস, তার মোট সম্পত্তির পরিমাণ ১৮৫.৮ বিলিয়ন ডলার। তার পরেই রয়েছেন মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস । তার মোট সম্পত্তি ১১৩.১ মিলিয়ন ডলার। ফোর্বস তালিকায় তৃতীয় ধনী ১১১.৮ বিলিয়ন ডলারের মালিক বার্নার্ড আর্নল্ড এবং তার পরিবার, যিনি এলভিএমএফের চেয়ারপারসন এবং চিফ এক্সিকিউটিভ।

প্রসঙ্গত গত কয়েক মাস ধরে বিভিন্ন সংস্থাকে রিলায়েন্সে লগ্নি করতে দেখা গিয়েছে। গত সপ্তাহে মুকেশ আম্বানি জানিয়েছিলেন, গুগল ৩৩,৭৩৭ কোটি টাকা দিয়েছে রিলায়েন্স জিওর ৭.৭ শতাংশ শেয়ার কিনবে বলে। জিও প্লাটফর্ম হল রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ এর অধীনে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম।

গোষ্ঠীর এই সংস্থাটি হল রিলায়েন্স জিও ইনফোকম। ২২ এপ্রিলের পর থেকে সংস্থায় ১৪টি লগ্নি হয়েছে। ৩৩,৭৩৭ কোটি টাকার বিনিয়োগের চুক্তি হয়েছে গুগল জিও প্লাটফর্মে ৭.৭ শতাংশ মালিকানার জন্য।

এরফলে গত তিন মাসের কম সময়ে রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ পুঞ্জিভূত লগ্নির পরিমাণ গিয়ে দাঁড়াচ্ছে ২,১২,৮০৯ কোটি টাকা,। পাশাপাশি লাফ দিয়ে বেড়েছে রিলায়েন্স শেয়ারের দাম।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।