রাঁচি: লকডাউনে ফের চর্চায় উঠে এল মহেন্দ্র সিং ধোনির অবসর৷ এবার সোশাল নিয়ে এলেন তাঁর স্ত্রী সাক্ষী৷

গত বছর ইংল্যান্ডের মাটিতে আইসিসি ৫০ ওভারের বিশ্বকাপের পর থেকে ধোনির অবসরের বিষয়টি সামনে আসে৷ সেমিফাইনালে নিউজিল্যান্ডের কাছে হেরে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নেয় ভারত৷ এর পরই অনেকে ভেবেছিলেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে গুডবাই জানাবেন প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক৷ কিন্তু তেমনটা হয়নি৷ তবে তারপর বেশ কিছুদিনের জন্য ক্রিকেট থেকে সরে দাঁড়িয়েছিলেন ধোনি৷

তারপর থেকে এখনও পর্যন্ত জাতীয় দলের হয়ে দেখা যায়নি ধোনিকে৷ এর ফর যত সময় গড়িয়েছে, মাহির অবসর নিয়ে ততই ধোঁয়াশা দেখা দিয়েছে৷ যদিও এ ব্যাপারে ধোনি সর্বদাই নীরব থেকেছেন৷ তবে গত বুধবারে যেমন #ধোনি রিটার্স ট্রেন্ডিং শুরু করেছিলেন টুইটারে, তাঁর স্ত্রী সাক্ষী সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে নেমেছিলেন এই প্রাক্তন ভারতীয় অধিনায়কের ভবিষ্যতের বিষয়ে মতামত জানাতে৷ টুইটারে সীক্ষা লেখেন, ‘এটি কেবল গুজব! আমি বুঝতে পারি লকডাউন মানুষকে মানসিকভাবে অস্থির করে তুলেছে!’ তবে পরে সাক্ষী এই টুইট মুছে ফেলেন।

রবিবার, চেন্নাই সুপার কিংস-এর অফিশিয়াল ইনস্টাগ্রাম হ্যান্ডেলে ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক রুপা রমনির সঙ্গে আলাপচারিতায় সাক্ষী ধোনি তাঁর স্বামীকে ঘিরে জল্পনা কল্পনা করেছিলেন। “তিনি এত কম প্রোফাইল রাখেন এবং এখন লকডাউন চলাকালীন, তার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমটি উপস্থিত রয়েছে, সুতরাং আমি জানি না যে, এগুলি কোথা থেকে এসেছে। মাহি এবং আমি, কোনও সংবাদ বা সোশ্যাল মিডিয়াতে অনুসরণ করবেন না,’ রমনিকে বলেন সাক্ষী৷

‘সেদিন যখন হ্যাশট্যাগটি ট্রেন্ডিং করছিল, আমার এক ঘনিষ্ঠ বন্ধু আমাকে’ এই কী হচ্ছে? “এই কথাটি এগিয়ে দিয়েছিল। সে জানত যে আমরা কোনও প্রতিক্রিয়া জানাব না।’ সাক্ষী যোগ করেছিলেন, ‘তবে কাজটি শেষ হয়েছিল, বার্তা পাঠানো হয়েছিল।’

৩৮ বছর বয়সি ধোনির প্রত্যাশিত প্রত্যাবর্তনটি কোভি -১৯ মহামারীর কারণে এই খেলায় প্রত্যাশিত ছিল, কারণ ইন্ডিয়ান প্রিমিয়র লিগ অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত ছিল। মার্চ মাসে চেন্নাই সুপার কিংসের প্রশিক্ষণ শিবিরে যোগ দেওয়া কয়েকজন ক্রিকেটারের মধ্যে তিনি ছিলেন। তবে দীর্ঘদিন জাতীয় দলের সঙ্গে জড়িত না-থাকার কারণে, কৃষ্ণমাচারী শ্রীকান্ত, সুনীল গাভাস্কর এবং কপিল দেবের মতো প্রাক্তন কিংবদন্তিরা বিশ্বাস করেন ধোনির পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রত্যাবর্তন করা ক্রমশ কঠিন হয়ে উঠছে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ