ভোপালঃ  হাসপাতালে ভর্তি করা হল মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহানকে। যদিও তাঁর অবস্থা স্থিতিশীল বলেই জানা গিয়েছে। আজ রবিবার সকালে হাসপাতালে বসেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর মন কি বাত শোনেন মুখ্যমন্ত্রী। তবে জানা গিয়েছে, শিবরাজ সিং চৌহানের একাধিক টেস্টও করা হয়েছে। খুব শীঘ্রই সেই রিপোর্টও চলে আসবে।

অন্যদিকে, মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহানের রিপোর্ট পজিটিভ আসতেই তাঁর পরিবারের সমস্ত সদস্যের করোনা টেস্ট করা হয়। টেস্ট করা হহয় তাঁর স্ত্রীয়েরও। স্বস্তির খবর। পরিবারের সমস্ত সদস্যের রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। তবে তাও পরিবারের সমস্ত সদস্যকে ১৪ দিনের হোম আইসোলেনে থাকার কথা বলা হয়েছে। প্রসঙ্গত, গত শনিবার করোনা আক্রান্ত হন মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান।

শনিবার ট্যুইট করে নিজেই সে কথা জানান মুখ্যমন্ত্রী। তিনি জানান. তাঁর করোনা পরীক্ষার ফল পজেটিভ এসেছে। পরপর বেশ কয়েকটি ট্যুইট করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। বেশ কয়েকদিন ধরেই করোনার বেশ কয়েকটি লক্ষ্মণ তিনি বুঝতে পারছিলেন বলে জানান। এরপরেই করোনা পরীক্ষা করান তিনি। রিপোর্ট পজেটিভ আসে শনিবার সকালে। এরপরেই নিজের শারীরিক পরিস্থিতির খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই ট্যুইট করেন শিবরাজ।

তিনি জানান, যাঁরা যাঁরা তাঁর সংস্পর্শে এসেছেন, তাঁরা যেন দয়া করে নিজেদের করোনা পরীক্ষা করান। তাঁর পরিবারের লোকজন কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন বলেও জানান তিনি।

মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শনিবারই জানান, করোনা গাইডলাইন মেনে চলছেন তিনি। বাকিরাও যেন মেনে চলেন। চিকিৎসকদের সব পরামর্শই তিনি পালন করছেন। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে তিনি প্রশাসনিক কাজ চালাবেন বলে ট্যুইট করে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

তিনি বলেন করোনা থেকে বাঁচার জন্য সব ধরণের সতর্কতাই তিনি নিয়েছিলেন। তবে প্রতিদিন অসংখ্য মানুষ তাঁর সঙ্গে দেখা করতে আসেন নানা প্রয়োজনে। ফলে সব সময় নিয়ম পালন করা সম্ভব নয়। চৌহান জানান করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠতে পারেন, যদি সঠিক সময়ে তাঁর চিকিৎসা হয়। ২৫শে মার্চ থেকে করোনা পরিস্থিতির ওপর নজর রাখছেন তিনি। তাঁর শারীরিক অসুস্থতা সত্ত্বেও সেই কাজ তিনি চালিয়ে যাবেন।

পাশাপাশি তিনি জানিয়েছেন, যে দিনগুলিতে তিনি নিজে ভিডিও কনফারেন্সে উপস্থিত থাকতে পারবেন না, তাঁর বদলে উপস্থিত থাকবেন রাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নরোত্তম মিশ্র, নগরোন্নয়ন ও প্রশাসন মন্ত্রী ভূপেন্দ্র সিং, স্বাস্থ্য শিক্ষা মন্ত্রী ভিসভাস সারাং, রাজ্য স্বাস্থ্য মন্ত্রী প্রভুরাম চৌধুরী।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।