স্টাফ রিপোর্টার, ইংরেজবাজার: করোনা আশঙ্কায় হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হল মালদহ জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভানেত্রী মৌসম বেনজির নূরকে। বুধবার জেলা স্বাস্থ্য দফতর থেকে নির্দেশিকা জারি করে একথা জানান হয়েছে বলে খবর।

সম্প্রতি তৃণমূল কংগ্রেসের আদিবাসী সংগঠনের নেত্রী সরলা মূর্মু করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। তাঁর স্বামীও করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। গত ২৭ জুলাই সরলা ও অন্যান্য নেতাদের সঙ্গে দলের একটি বৈঠকে যোগ দেন মৌসম নূর। সেই কারণেই তাঁকে হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠালো স্বাস্থ্য দফতর।

তবে শাসকদলে করোনা সংক্রমণের ভীতি এই প্রথম নয়। তৃণমূলে প্রথম করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার ফলতার তৃণমূল বিধায়ক তথা সর্বভারতীয় তৃণমূল বিধায়ক তমোনাশ ঘোষ। কয়েকদিন আগে তিনি মারা গিয়েছেন।

তারপর করোনা সংক্রমিত হন রাজ্যের দমকলমন্ত্রী তথা বিধাননগরের বিধায়ক সুজিত বসুও। তাঁর বাড়ির এক পরিচারিকা করোনা আক্রান্ত হন। এরপর প্রথমে সুজিত বসু হোম আইসোলেশনে থাকলেও পরে তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়। গত সপ্তাহেই তিনি সুস্থ হয়ে বাড়ি ফেরেন। বিধানসভার মুখ্য সচেতক নির্মল ঘোষ করোনা আক্রান্ত হন। এছাড়াও শাসকদলের অনেকেই করোনা আক্রান্ত বলে খবর। যা দলের অন্দরেও উদ্বেগ বাড়াচ্ছে।

প্রসঙ্গত, গতকাল মঙ্গলবারের তুলনায় একদিনে আক্রান্তের সংখ্যা কিছুটা কমল৷ গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৬১১ জন৷ গতকাল মঙ্গলবার এই সংখ্যাটা ছিল ৬৫২ জনে৷ তবে এই পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ১৯ হাজার ছাড়াল৷

বুধবার রাজ্য সরকারের বুলেটিন অনুযায়ী, গত ২৪ ঘন্টায় অর্থাৎ মঙ্গলবার থেকে বুধবার সকাল ৯ টা পর্যন্ত করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৬১১ জন৷ মোট আক্রান্ত ১৯,১৭০ জন৷ নতুন করে মৃত্যু হয়েছে ১৫ জনের৷ ফলে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৬৮৩ জনে৷ তবে অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা ৫,৯৫৯ জন৷

গতকাল মঙ্গলবার ছিল ৫,৭৬১ জনে৷

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ