লখনউ: পাকিস্তানের জঙ্গি ঠিকানায় এয়ার স্ট্রাইক করে পুলওয়ামা হামলার প্রতিশোধ নিয়েছে ভারতীয় সেনা৷ সেই খবর প্রকাশ্যে আসতেই দেশজুড়ে উৎসবের মেজাজ৷ কিন্ত এই আবহেই বেসুরো গাইলেন পুলওয়ামা হামলায় শহীদ কনস্টেবল প্রদীপ কুমারের মা৷তিনি জানিয়েছেন, এই এয়ার স্টাইকে তিনি একেবারেই খুশি হননি৷ এই প্রত্যাঘাতকে মিথ্যে বলে দাবি করেছেন তিনি৷

পুলওয়ামা হামলার ১২ দিনের মাথায় ভারতীয় বায়ু সেনা পাকিস্তানের বালাকোটে এয়ারস্ট্রাইক করে৷ এই এয়ারস্ট্রাইকে ৩০০র বেশি জঙ্গি খতম হয়েছে বলে মোদী সরকার দাবি করেছে৷ এরপরই শামিলের বাসিন্দা শহীদ প্রদীপ কুমারের মাকে সাংবাদিকরা জিজ্ঞাসা করেন, এই এয়ার স্ট্রাইকে তিনি খুশি কিনা? তখন তিনি বলেন, “এই স্ট্রাইকে আমি একদমই খুশি হয়নি৷এসব মিথ্যে৷

সরকার শুধু মুখে বলছে মারা গিয়েছে কিন্তু এখনও পর্যন্ত একটা জঙ্গিরও মৃতদেহ দেখানো হয়নি৷আমাদের এখানে শহীদদের যেরকম মৃতদেহ দেখানো হয়েছে আমি চাই ওদেরও মৃতদেহ দেখানো হোক৷ সেটা দেখেই আমি খুশি হব৷”

সংবাদ সংস্থা এএনআই সূত্রে জানা গিয়েছে, বুধবার পাক যুদ্ধ বিমানকে ধ্বংস করেছে ভারতীয় বিমান৷ সেটা শক্তিশালী F-16 ছিল বলে জানা গিয়েছে৷ নৌসেরা সেক্টরের লামবেইলীতে পাক বিমানটিকে গুলি করে নামানো হয়৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।