আমদাবাদ: আইকনিক মোতেরা স্টেডিয়াম এবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেট নিয়ে আত্মপ্রকাশের অপেক্ষায়। বুধবার দুপুরে ভারত-ইংল্যান্ড সিরিজের পিঙ্ক বল টেস্ট ম্যাচ দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আত্মপ্রকাশ ঘটছে বিশ্বের সর্বাধিক দর্শকাসন বিশিষ্ট ক্রিকেট স্টেডিয়ামের। ইতিমধ্যেই রুট-কোহলিদের সাদরে আপ্যায়ন করেছে মোতেরা। কেবল ভারতীয় ক্রিকেটাররাই নন, নবরূপে মোতেরায় মোহিত হয়েছেন ইংল্যান্ডের বর্তমান থেকে প্রাক্তন ক্রিকেটাররা৷

নয়া কলেবরে মোতেরাকে দেখে প্রাক্তন ইংল্যান্ড অধিনায়ক কেভিন পিটারসেন এতটাই অনুপ্রাণিত যে মোতেরা’কে ওল্ড ট্র্যাফোর্ডের সঙ্গে তুলনা করেছেন। ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড ফুটবল ক্লাবের হোমগ্রাউন্ড অনুরাগীদের কাছে পরিচিত ‘থিয়েটার অফ ড্রিমস’ বা ‘স্বপ্নের রঙ্গমঞ্চ’ হিসেবে। মোতেরাকেও সেই নামেই সম্বোধন করেছেন কেপি।

২০১২ সালের নভেম্বর মাসে শেষ টেস্ট আয়োজিত হয়েছিল মোতেরা স্টেডিয়ামে। সেই ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল ভারত-ইংল্যান্ড। ৯ বছর পর ফের সেই ভারত-ইংল্যান্ড দ্বৈরথ দিয়েই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরতে চলেছে নবরূপে সজ্জিত মোতেরা স্টেডিয়ামে৷ ঠিক এক বছর আগে অর্থাৎ ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের হাত ধরে উদ্বোধন হয়েছিল বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের৷ আমদাবাদে সর্দার বল্লবভাই প্যাটেল ক্রিকেট স্টেডিয়ামের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মার্কিন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন মার্কিন ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্প এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী৷

৬৩ একর জায়গায় ১ লক্ষ ১০ হাজার দর্শক আসন। অত্যাধুনিক এলইডি বাতিস্তম্ভ। চারটি আধুনিক ঝাঁ-চকচকে ড্রেসিংরুম। সুসজ্জিত গ্যালারি। অত্যাধুনিক প্রেসবক্স। স্টেডিয়াম লাগোয়া একাধিক নেট করার জায়গা। সুবিশাল জিম। এসবই রয়েছে নবরূপে সজ্জিত মোতেরার সর্দার বল্লভ ভাই প্যাটেল স্টেডিয়ামে৷ শুধু গ্যালারি নয়, মাঠের ক্ষেত্রেও রয়েছে অত্যাধুনিক ব্যবস্থা৷ রয়েছে ১১টি পিচ৷ বিশ্বের প্রথম কোনও ক্রিকেট স্টেডিয়াম, যেখানে এত সংখ্যক পিচ রয়েছে।
অত্যাধুনিক এলইডি লাইট বসানো হয়েছে। গুজরাট ক্রিকেট সংস্থার পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, যে এই লাইটগুলো এতটাই উজ্বল যার ফলে দিন-রাতের টেস্ট গোধূলি সময়ও কোনও সমস্যা হবে না ক্রিকেটারদের।

এদিকে গুজরাতে দিন-রাতের টেস্ট ঘিরে প্রবল আগ্রহ তৈরি হয়েছে। দর্শকদের মধ্যে টিকিটের চাহিদা তুঙ্গে। স্থানীয় ক্রিকেট সংস্থার মতে, প্রত্যেকদিন অর্ধেক স্টেডিয়াম ভর্তি থাকবে। অর্থাৎ বোর্ডের নির্দেশ অনুযায়ী মোট দর্শক সংখ্যার ৫০ দর্শক খেলা দেখতে আসবেন এখানে। গোলাপি টেস্ট ঘিরে নানারকম বিনোদনমূলক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হচ্ছে।

প্রথম দিন উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। উপস্থিত থাকবেন বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় ও সচিব জয় শাহ সহ বোর্ডের সমস্ত কর্তা। টেস্ট সিরিজের বাকি দুটি ম্যাচ ও টি-টোয়েন্টি সিরিজের পাঁচটি ম্যাচে আয়োজিত হবে এই স্টেডিয়ামে।

এক নজরে দেখে নেওয়া যাক বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের খুঁটিনাটি:

* মোতেরা স্টেডিয়াম স্টেডিয়ামের অপর নাম সর্দার বল্লভভাই প্যাটেল৷ ৬৩ একর জমি ঘেরা এই স্টেডিয়ামে রয়েছে তিনটি প্রবেশদ্বার

* এই স্টেডিয়ামে দর্শকাসন ১ লক্ষ ১০ হাজার৷ তবে ট্রাম্পের উদ্বোধনের সময় স্টেডিয়ামে উপস্থিত থাকবেন প্রায় ১ লক্ষ ২৫ হাজার মানুষ৷

* স্টেডিয়াম তৈরিতে ৮০০ কোটি টাকা খরচ করা হয়েছে।

* ১১টি পিচ ও ৪টি সুসজ্জিত ড্রেসিংরুম এবং ৭৬ টি কর্পোরেট বক্স রয়েছে।

* দর্শকদের যাতায়তের জন্য ১৬টি রাস্তা মিশেছে স্টেডিয়ামের মুল রাস্তার সঙ্গে৷ এর জন্য খরচ হয়েছে প্রায় ৫০ কোটি টাকা৷

* ক্লাব হাউজে থাকছে ৫৫টি রুম৷ পাশাপাশি থাকছে ইন্ডোর ও আউটডোর স্পোর্টসের সুবিধা৷ এছাড়াও রেস্তোয়াঁ, অলিম্পিক সাইজের সুইমিং পুল, জিমন্যাসিয়াম এবং পার্টি এরিয়া৷

* স্টেডিয়ামের সঙ্গে যুক্ত হচ্ছে আমদাবাদ মেট্রো৷

* স্টেডিয়ামে থাকছে অত্যাধুনিক পার্কিং লট৷ যেখানে রাখা যাবে ৩ হাজার চার চাকার গাড়ি এবং ১০ হাজার দু’চাকার গাড়ি৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।