লখনউ: ভোট বড় বালাই৷ সেটা করতে গিয়ে একটার পর একটা ফ্যাসাদে জড়িয়ে পড়েছেন উত্তরপ্রদেশের বিজেপি নেতা মন্ত্রীরা৷ লোকসভা ভোটের আগে দলিত বিক্ষোভের ক্ষতে প্রলেপ দিতে জনসংযোগ বাড়ানোর উপর জোর দিয়েছে বিজেপি৷ বিলাসবহুল বাড়ি ছেড়ে দলিতদের অগোছালো, অন্ধকার স্যাঁতসেতে বাড়িতে রাত কাটাতে হচ্ছে মন্ত্রীদের৷ মুখ ফুটে কষ্টের কথা নাই বা বলছে কিন্তু তাদের কাজকর্ম থেকেই মালুম হয়ে যাচ্ছে দলিতদের সঙ্গে রাত কাটিয়ে তারা কতটা ‘তৃপ্ত’৷ বলছে ওয়াকিবহাল মহল৷

আরও পড়ুন: খনি কেলেঙ্কারির রেড্ডি ভাইয়ের সঙ্গে এক মঞ্চে প্রধানমন্ত্রী

যোগী সরকারের শিক্ষামন্ত্রী অনুপমা জয়সওয়াল সম্প্রতি কয়েকটি দলিত বাড়িতে গিয়ে সময় কাটিয়ে আসেন৷ লক্ষ্য ছিল দলতিদের জন্য সরকারি যে সুযোগ সুবিধা বা প্রকল্প রয়েছে সেগুলি তারা পাচ্ছেন কিনা৷ দলিতদের বাড়িতে থাকতে পেরে কতটা ‘তৃপ্ত’ তারা সেই অভিজ্ঞতার কথা বলতে বসেন শিক্ষামন্ত্রী৷ বলেন,‘‘দলতিদের কাছে সরকারি প্রকল্পগুলির সুবিধা পৌঁছচ্ছে কিনা জানতে মন্ত্রীরা তাদের বাড়িতে রাত কাটিয়ে আসছেন৷ সারা রাত মশার কামড় খেয়েছেন৷ তাসত্ত্বেও এই কাজ করতে পেরে তাঁরা খুবই তৃপ্ত৷ কাউকে দুটো দলিত বাড়িতে যাওয়ার কথা বলা হলে তাঁরা চারটে বাড়িতে যাচ্ছেন৷ কাজে তৃপ্ততা আসলে সেই কাজ করার প্রতি আগ্রহ বাড়ে৷ এমনকী আমাকেও যতগুলো দলিত বাড়িতে যেতে বলা হয়েছিল তার চেয়ে বেশি বাড়িতে সময় কাটিয়ে এসেছি৷’’

শিক্ষামন্ত্রীর ‘মশার কামড়’ খাওয়া মন্তব্যটি শুনে অনেকেই ভ্রু কুঁচকেছেন৷ শ্লেষের সুরে কেউ কেউ বলছেন, মন্ত্রীরা বিলাসবহুল জীবনে এতটাই অভ্যস্ত হয়ে পড়েছেন যে তারা বাস্তব থেকে বহু দূরে চলে গিয়েছেন৷ তাদের মনে রাখা উচিত তাঁরা কোন পাঁচতারা হোটেলে রাত কাটাতে যাননি৷

আরও পড়ুন: আর্কিওলজিকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে তুঘলক আমলের সৌধ বদলে গেল মন্দিরে

 

এর আগে সোমবার এক বিজেপি মন্ত্রী সুরেশ রানা বাইরে থেকে জিভে জল আনা পালংপনীর, ছোলে, ডাল মাখানি, পোলাও, তন্দুরি রুটি এবং শেষপাতে গুলাব জামুন খেয়ে দলিতের বাড়িতে রাত কাটান৷ একধাপ এগিয়ে আরেক মন্ত্রী রাজেন্দ্র প্রতাপ নেতা জানান, দলিতদের বাড়িকে শুদ্ধ করতে বিজেপি নেতারা রাম হয়ে তাদের বাড়ি আসছেন৷

সুরেশ রানা ও রাজেন্দ্র প্রতাপের এই আচরণ সোশ্যাল মিডিয়ায় নেটিজেনদের সমালোচনাই কুড়িয়েছে৷ বিজেপির দলিত প্রীতির নাটক বন্ধ করতে বলে সোচ্চার হন অনেকে৷ খোদ দলের অন্দররেও অনেকেই বিজেপির নেতাদের এই সব আচরণকে সমর্থন করেননি৷ কেন্দ্রীয় জলসম্পদ মন্ত্রী উমা ভারতী জানান, তিনি মনে করেন না যে ভগবান রাম বাড়ি এসে দলিতদের আর্শীবাদ করছে৷ বরং দলিতরা তাঁর বাড়ি এলে তিনি নিজেকে ধন্য মনে করবেন৷