কলকাতা : ডেঙ্গুর জন্য আবহাওয়াকেই দায়ী করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ বন্যার পর ম্যালেরিয়া, ডায়েরিয়া, জ্বর এই ধরনের রোগই প্রাদুর্ভাব বেশি হয় বলেই তাঁর মত৷ তাই এবার ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হচ্ছেন অনেকে৷ তিনি বলেন, ‘‘মৃত্যু সবসময়ই কষ্টের৷ তবে এটা খানিকটা আবহাওয়ার জন্যও হচ্ছে৷’’

তাঁর কথায়, সরকারি তরফে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে যথাসাধ্য চেষ্টা করা হচ্ছে৷ কিন্তু মশা তো আর সরকারের হাতে নেই৷ ফলে মানুষ ডেঙ্গি আক্রান্ত হচ্ছেন৷যদিও পশ্চিমবঙ্গের ডেঙ্গু পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলেই তাঁর অভিমত৷ মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‘এর জন্য সরকার সব ব্যবস্থা নিচ্ছে৷ চিকিৎসকরা তাঁদের সাধ্যমত চেষ্টা করছেন৷’’ তাঁর অভিযোগ, এ নিয়ে একাংশের তরফে ভুল তথ্য ছড়ানো হচ্ছে৷ এতে বিভ্রান্ত হচ্ছেন মানুষ৷ তাই তিনি এদিন আবারও ডেঙ্গু নিয়ে বিভ্রান্তি না ছড়ানোর জন্যও আবেদন করেছেন তিনি৷

আরও পড়ুন: বাংলায় ডেঙ্গু রুখতে মোদীর কাছে ‘হার মানলেন’ মমতা

একই সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী জানান, এখনও পর্যন্ত সরকারি হাসপাতালগুলিতে ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে৷ বেসরকারি হাসপাতালে ২৭ জন ডেঙ্গিতে মারা গিয়েছেন বলে খবর৷ তবে সেগুলি সরকারি ভাবে খতিয়ে দেখা হচ্ছে৷ এদিন নবান্নে কলকাতা, হাওড়ার মেয়র-সহ কলকাতা সংলগ্ন জেলার পুরসভাগুলির চেয়ারম্যান এবং স্বাস্থ্য দফতরের কর্তাদের নিয়ে বৈঠকে বসেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ সেই বৈঠকের পর রাজ্যের ডেঙ্গি-চিত্র তুলে ধরতে গিয়ে অভিযোগ করেন, পশ্চিমবঙ্গের তুলনায় আয়তনে ছোট রাজ্যগুলিতে ডেঙ্গি পরিস্থিতি ভয়ঙ্কর৷ গুজরাতে এখনও পর্যন্ত সাড়ে চারশো জন মারা গিয়েছেন বলে তাঁর দাবি৷ এছাড়া ওড়িশা, কেরলের মতো রাজ্যগুলিতেও ডেঙ্গি পরিস্থিতি ভয়ানক বলেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দাবি৷

আর এ রাজ্যে যে অঞ্চলগুলিতে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব রয়েছে, সেখানে রাজ্য সরকারের তরফে নজরদারি চলছে৷ স্বাস্থ্য আধিকারিকরা কাজ করছেন৷ প্রয়োজনে ব্যবস্থাও নিচ্ছেন বলে মুখ্যমন্ত্রীর দাবি৷ পুরসভাগুলিকে টাকা দেওয়া হয়েছে৷ সেই টাকায় সঠিকভাবে কাজ করতে বলা হয়েছে বলেও তিনি জানান৷ তাঁর কথায়, টাকা পেয়েও কাজ না করলে পুরসভাগুলিকে ভেঙে দেওয়া হবে৷
এর আগে বিধাননগরে ডেঙ্গিতে মৃত্যু নিয়ে কেন্দ্রের ঘাড়ে দায় চাপিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী৷ জানিয়েছিলেন, বিধাননগরে কেন্দ্রীয় সরকারি কার্যালয়গুলিতে ঠিকমতো পরিষ্কার করা হচ্ছে না৷ তাই সেখানে ডেঙ্গি ছড়াচ্ছে৷ এদিনও ডেঙ্গি নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে অসহযোগিতার অভিযোগও তুলছেন৷ বলেছেন, কলকাতায় যে মেট্রো প্রজেক্টগুলি হচ্ছে৷ সেখানে ডেঙ্গি বা মশাবাহিত রোগ নিয়ন্ত্রণে সেভাবে কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয় না৷ রাজ্যের তরফে সেখানে যাওয়া হলেও তাদের কাজ করতে দেওয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ করেন তিনি৷

আরও পড়ুন: ‘বিষ মদে দু’লক্ষ ক্ষতিপূরণ, কিন্তু ডেঙ্গুতে নয় কেন?’

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।