স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: রাতের বৃষ্টিতে আর নামল না শহরের তাপমাত্রা। উলটে বেশ কিছুটা বাড়ল। তবে তাপমাত্রা এখনও স্বাভাবিকের নীচে। বৃহস্পতিবার সকালে শহরের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৯.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের থেকে এক ডিগ্রি কম। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ২৭.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের থেকে চার ডিগ্রি কম।

বুধবার মাঝরাতে বৃষ্টি নামে শহরে। সারাদিন বৃষ্টির সম্ভাবনা থাকলেও বৃষ্টি হয়নি। মাঝ রাত পেরিয়ে রাত দুটোর সময় বৃষ্টি নামে কলকাতায়। ঠিক যেমনভাবে সোমবার ভোররাতে বৃষ্টি শুরু হয়েছিল এই বৃষ্টি অনেকটা তেমনই ছি;। রাতের কলকাতায় বৃষ্টি হলে সকালে ফের পারদ পতনের সম্ভাবনা ছিল। কিন্তু তা হয়নি।

মঙ্গলবার প্রায় দিনভর বৃষ্টির জেরে বুধবার সকালের পারদ বেশ কিছুটা নীচে ছিল কলকাতার। বুধবার কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৭.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের থেকে দুই ডিগ্রি কম। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা মঙ্গলবার দুপুরে ২৭ থেকে এক ঝটকায় নামে ২২.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। যা স্বাভাবিকের থেকে ৯ ডিগ্রি কম। কিন্তু আর্দ্রতা বেশি থাকায় মোটামুটি একটা ঠান্ডা ভাব ছিল শহর ও শহরতলিতে। একদিন বাদে রাতের বৃষ্টি হয়েও তাপমাত্রা আর নামেনি। অঙ্ক অনুযায়ী তাপমাত্রা উল্টে বেড়েছে। সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন উভয়ের ক্ষেত্রেই তা স্পষ্ট।

বুধবার সন্ধ্যা থেকে রাতের মাঝে এক দফা ঝড় বৃষ্টি হয়েছে উত্তরবঙ্গের তিন জেলায়। বুধবার সকালে উত্তরবঙ্গের পাহাড়ে ঘূর্ণাবর্তের জেরে বরফ পড়েছে। বসন্তের রাতের শুরুতে বৃষ্টি হয়েছে জলপাইগুড়ি , দার্জিলিং ও কালিম্পঙে। এমনিতেই উত্তরের প্রত্যেকটি জেলাতেই ঝড় বৃষ্টি হচ্ছে। এদিন সন্ধ্যার ঝড় বৃষ্টি তার আরও এক দফা ছিল। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত বুধবার দার্জিলিং-য়ে ৪৬.৮ মিলিমিটার, জলপাইগুড়িতে ৬২.৩ মিলিমিটার, কালিম্পঙে ৪২.০ মিলিমিটার, শিলিগুড়িতে ৪৫.০ মিলিমিটার, মালদহে ১১.৫ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।