File Pic

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা : জল বাঁচাও দিবসে কলকাতার রাস্তায় হেঁটেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবার জাতীয় নাগরিকপঞ্জিকরণ (এনআরসি) বিরোধী মিছিলে হাঁটবেন তিঁনি। বৃহস্পতিবার দুপুর আড়াইটে নাগাদ সিঁথির মোড় থেকে মিছিল শুরু হওয়ার কথা। মিছিল শেষ হবে শ্যামবাজার পাঁচ মাথার মোড়ে । সেই সময় যাতে বি টি রুটে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক থাকে, তার জন্য মোতায়েন থাকবে অতিরিক্ত ট্রাফিক পুলিশ। পাশাপাশি মোতায়েন থাকবেন কলকাতা পুলিশও।

কলকাতা পুলিশের ডিসি ( ট্রাফিক) সন্তোষ পান্ডে জানান, রাস্তার একপাশ দিয়ে মিছিল যাবে আর অন্য পাশ দিয়ে যানবাহন চলাচল সচল রাখা হবে। মিছিলের সময় বিটি রোডের যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক রাখতে মোতায়েন থাকবে অতিরিক্ত ট্রাফিক পুলিশ।

বৃহস্পতিবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এর ডাকা মিছিলে সাংসদ, বিধায়ক ছাড়াও হাঁটবেন প্রচুর সাধারণ মানুষ। মিছিল শুরু হওয়ার আগেই তারা জমায়েত হবেন সিঁথির মোড়ে। ফলে যানজট দেখা দিতে পারে বি টি রোডে। মিছিলের সময় সিঁথি মোড় থেকে শ্যামবাজার পর্যন্ত গোটা বি টি রোডেই যান চলাচল কার্যত স্তব্ধ হতে পারে। থমকে যেতে পারে বিটি রোডের আশপাশের বেলগাছিয়া, পাইকপাড়া ও কাশিপুর এর পথঘাট। বিশেষ করে বি টি রোডের সঙ্গে যে সমস্ত রাস্তা কানেক্ট হয়ে আছে, সেই সব রাস্তা।

পুলিশ সূত্রে খবর, মিছিলের সময় সিঁথির মোড়, চিড়িয়ামোড় ও শ্যামবাজার পাঁচ মাথার মোড়ে যান বাহন চলাচল কিছুটা নিয়ন্ত্রণ করা হবে। এবং ওই সব পয়েন্টে মোতায়েন থাকবে অতিরিক্ত পুলিশ।

এর আগে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষণা করেন জল বাচাঁও দিবসের। সেই উপলক্ষে কলকাতা শহরে হেঁটেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। গত ১২ জুলাই দিনটি পালন করতে সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউ রাস্তার একটা অংশ আটকে তৈরি করা হয়েছিল মঞ্চ। কর্মসূচি শুরুর অনেক আগে থেকেই বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল অনেক রাস্তা। দুর্ভোগে পড়তে হয়েছে পথ চলতি মানুষকে। গিরিশ পার্ক থেকে কলকাতামুখী সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউ রোড বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। গিরিশ পার্ক থেকে যান চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে। কলকাতা গামী গাড়িগুলোকে বিবেকানন্দ রোডে দিয়ে ঘুরিয়ে ধর্মতলা পাঠানো হয়েছে। যদিও ধর্মতলা থেকে শোভাবাজারগামী সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউ রোডটি চালু রাখা হয়েছিল।