মুম্বই : মুডি’জ র‌্যাঙ্কিং-এ ভারতের উত্থানের খবরে স্টক মার্কেটও চাঙ্গা হয়েছে দ্রুত। বম্বে স্টক এক্সচেঞ্জের সূচক সেনসেক্স, নিফটি প্রত্যেক ক্ষেত্রেই উন্নতি করেছে শেয়ার বাজার। পাশাপাশি আন্তর্জাতিক বাজারে ভারতের মুদ্রার দামও অনেকটাই কমেছে। এসবই যে মুডিজ এফেক্ট তা স্পষ্ট।

এদিন ০.৭১ শতাংশ উঠে ৩৩,৩৪২.৮০-তে থেমেছে সূচক। আর জাতীয় স্টক এক্সচেঞ্জের সূচক নিফটি ০.৬৭ শতাংশ উঠে দিনের কারবারের শেষে থেমেছে ১০,২৮৩.৬০ পয়েন্টে। এদিন বেড়ে গিয়েছে ভারতীয় মুদ্রার মানও। এক ধাক্কায় ডলার প্রতি ৬৯ পয়সা দাম বেড়েছে টাকার।

মুডি’জ রেটিং এবং তার জেরে ভারতীয় অর্থনীতিতে ফের চাঙ্গা ভাব নিঃসন্দেহে স্বস্তি দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকারকে তথা বিজেপিকে। প্রধানমন্ত্রী মোদীর নিজের রাজ্য গুজরাত এখন ভোটমুখী। নোটবন্দি এবং জিএসটি-র জেরে দেশের অর্থনীতি মারাত্মক ধাক্কা খেয়েছে বলে বিরোধীরা জোরদার প্রচার শুরু করেছে গুজরাতে। কিন্তু মুডি’জ-এর দেওয়া রেটিং বিরোধীদের সেই প্রচারকে অনেকটাই ভোঁতা করে দিল।

মুডি’জ র‌্যাঙ্কিং-এ শেষ বার ভারতের উত্থান হয়েছিল ২০০৪ সালে। সে বছর ভারতীয় অর্থনীতিকে ‘বিএএ৩’ স্তরে তুলে এনেছিল আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষক সংস্থাটি। ১৩ বছর পরে আরও এক ধাপ উঠল ভারত। মুডি’জ ভারতকে এ বার ‘বিএএ২’ স্তরে তুলে আনল। সংস্থাটির তরফে জানানো হয়েছে, জিএসটি, নোটবন্দি-সহ বেশ কিছু আর্থিক ও প্রাতিষ্ঠানিক সংস্কারের কারণে ভারতের অর্থনীতি এখন বেশ মজবুত। আর্থিক পরিকাঠামোর উন্নয়নে আধারের মতো বায়োমেট্রিক পদ্ধতির প্রচলন, সরকারি সুযোগ-সুবিধা নাগরিকের কাছে সরাসরি পৌঁছে দেওয়ার মতো যে সব নীতি ভারত নিয়েছে, সেগুলির প্রশংসা করে মুডি’জ জানিয়েছে, ভারত সরকার যদি এ ধরনের সংস্কার বজায় রাখতে পারে, তা হলে আগামী দিনে দেশের আর্থিক বৃদ্ধি একটা বিশেষ উচ্চতায় পৌঁছবে।