নয়াদিল্লি: ভোটের আগে একসঙ্গে ১৩টি প্রজেক্টের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। শনিবার রাজস্থানে গিয়ে এই প্রকল্পগুলির উদ্বোধন করবেন তিনি। লোকসভা ভোটের আগেই বিধানসভা নির্বাচন রয়েছে রাজস্থানে। তাই, শনিবার প্রধানমন্ত্রীর এই উপস্থিতি যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ।

এদিন মোট ২১০০ কোটি টাকার প্রকল্পের উদ্বোধন নিজে হাতে করবেন নরেন্দ্র মোদী। এছাড়া সাতটি কেন্দ্রীয় ও পাঁচটি রাজ্যের স্কিমের বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তাদের সঙ্গে কথা বলবেন মোদী। এই স্কিমগুলির মধ্যে রয়েছে প্রধানমন্ত্রী উজ্জ্বলা যোজনা, প্রধানমন্ত্রী মুদ্রা যোজনা, প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার মত গুরুত্বপূর্ণ কিছু স্কিম। উপস্থিত থাকবেন রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী বসুন্ধরা রাজে।

প্রধানমন্ত্রীর প্রকল্পগুলির মধ্যে থাকছে উদয়পুরের জন্য বিশেষ ইনফ্রাস্ট্রাকচার প্রজেক্ট, আজমেড়ে রাস্তা তৈরির প্রজেক্ট, যোধপুর, আলোয়ার, নাগাউর ও ঢোলপুরের জন্য জল নিকাশীর বিশেষ প্রকল্প। জয়পুরে একটি জনসভায় বক্তব্যও রাখবেন মোদী।

সূত্রের খবর, মোদী জনসভার জন্য ৭ কোটি টাকা খরচ করবে রাজস্থান সরকার৷ বেশ কয়েকটি কল্যাণমূলক প্রকল্পের উপভোক্তাদের উদ্দেশে এই জনসভা৷ উপস্থিত থাকতে চলেছেন প্রায় আড়াই লক্ষ মানুষ৷ প্রায় ১২ টি প্রকল্পের উপভোক্তারা উপস্থিত থাকবেন সেখানে৷ কেন্দ্র ও রাজ্যের যৌথ উদ্যোগে এই প্রকল্পগুলি চালু রয়েছে৷

ইতিমধ্যেই ৫৫৭৯ টি বাসের আয়োজন করা হয়েছে মানুষকে নিয়ে আসার জন্য৷ আম্রুদো কা বাগ স্টেডিয়ামে এই জনসভার আয়োজন করা হয়েছে৷ প্রশাসনিক আধিকারিকরা জানাচ্ছেন ৩৩ টি জেলা থেকে মানুষকে নিয়ে আসতে খরচ করা হয়েছে ৭২২.৫৩ লক্ষ টাকা৷

প্রতি বাসের জন্য প্রতি কিলোমিটারে ২০ টাকা করে খরচ হচ্ছে রাজ্য সরকারের৷ আলওয়ার, উদয়পুর ও আজমেড় থেকে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক বাস আসছে জনসভায়৷ শুধু জয়পুর থেকে আসছে ৫৩২টি বাস৷

রাজস্থান পুলিশের এডিজি এন আর কে রেড্ডি জানিয়েছেন কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থায় মুড়ে ফেলা হয়েছে জনসভা স্থল৷ চলছে স্নিফার ডগ দিয়ে তল্লাশি, চলছে কড়া নজরদারি৷ এই স্টেডিয়ামে তৈরি করা হয়ে দুটি হেলিপ্যাড৷

গোটা এলাকা ঘিরে ফেলা হয়েছে সিসিটিভি দিয়ে৷ তৈরি করা হয়েছে অস্থায়ী কন্ট্রোল রুম৷ ১৮ জন পুলিশ সুপার উপস্থিত থাকবেন এই জনসভায়৷

সপ্তম পর্বের দশভূজা লুভা নাহিদ চৌধুরী।