স্টাফ রিপোর্টার, তমলুক: করোনার হানায় ঊর্ধ্বমুখী আক্রান্তের সংখ্যা। সেইসঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃতের সংখ্যাও। দিন যত এগোচ্ছে ততই উত্তরোওর বৃদ্ধি পাচ্ছে সংক্রামিত রোগীর সংখ্যা। উদ্বেগে ভুগছে প্রশাসন। আর এই অবস্থায় জেলায় দুই ব্যক্তির মৃত্যুর ঘটনায় সংক্রমণ রোধে ফের নড়েচড়ে বসল তাম্রলিপ্ত পুরসভা। করোনাভাইরাসের বাড়বাড়ন্ত ঠেকাতে আগামী সোমবার থেকে রবিবার পর্যন্ত টানা সাতদিন সম্পূর্ণ লকডাউন থাকবে জেলার এই পুর এলাকা।

তাম্রলিপ্ত পুরসভায় ব্যবসায়ী সমিতি ও পুর এলাকার ক্লাবগুলিকে নিয়ে এই বিষয়ে একটি জরুরি বৈঠক হয় বৃহস্পতিবার বিকেলে। বৈঠকে উপস্থিত পুরসভার প্রশাসক রবীন্দ্রনাথ সেন, প্রতিটি ওয়ার্ডের কো-অর্ডিনেটররা উপস্থিত ছিলেন। জানা গিয়েছে, আগামী দিনে কিভাবে এলাকায় লকডাউন জারি থাকবে সেই বিষয় নিয়ে এদিনের জরুরি বৈঠকের আয়োজন। পাশাপাশি সাতদিনের লকডাউনের কথা বলা হয়েছে।

অন্যদিকে বুধবার পর্যন্ত তাম্রলিপ্ত পুরসভা এলাকায় ৭৪ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। করোনায় আক্রান্ত হয়ে ২ ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। দিন দিন যেভাবে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছে এলাকার মানুষ। তাতে করে যেমন উদ্বিগ্ন বাড়ছে প্রশাসনের তেমনি আতঙ্ক বাড়ছে শহরবাসীর।

এদিনের বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত হয় যে, শুক্রবার এবং রবিবার তমলুক পুর এলাকায় সমস্ত দোকানপাট খোলা থাকবে। আগামী সোমবার থেকে রবিবার পর্যন্ত সাত দিন সম্পূর্ণ লকডাউন থাকবে।

অন্যদিকে, বাংলায় একদিনেই প্রায় তিন হাজার আক্রান্ত৷ গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু হয়েছে ৫৬ জনের৷ সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২ হাজারের বেশি৷ তবে একদিনে টেস্ট হয়েছে ২৫ হাজারের বেশি৷ বৃহস্পতিবারের রাজ্য স্বাস্থ্য ভবনের বুলেটিনের তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘন্টায় আক্রান্ত ২,৯৫৪ জন৷ এই পর্যন্ত রাজ্যে মোট আক্রান্তের সংখ্যাটা বেড়ে দাঁড়াল ৮৬ হাজার ৭৫৪ জনে৷ তবে অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা ২৩ হাজার ৮২৯ জন৷

একদিনে বেড়েছে ৮৩৭ জন৷ একদিনে বাংলায় মৃত্যু হয়েছে ৫৬ জন৷ বুধবারের বুলেটিনে মৃতের সংখ্যাটা ছিল ৬১ জন৷ সেই তুলনায় আজ বৃহস্পতিবার মৃতের সংখ্যা কম৷ তবে এই পর্যন্ত মোট মৃত্যু হয়েছে ১,৯০২ জনের৷ গত ২৪ ঘন্টায় সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন ২ হাজার ৬১ জন৷ ফলে এই পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৬১ হাজার ২৩ জন৷ সুস্থ হয়ে উঠার হার ৭০.৩৪ শতাংশ৷

বুধবার ছিল ৭০.৩৬ শতাংশ৷ বাংলায় প্রতিদিনই বাড়ছে করোনা টেস্টের সংখ্যা৷ গত ২৪ ঘন্টায় টেস্ট হয়েছে ২৫ হাজার ২২৪ টি৷ একদিনে বাংলায় এটাই সর্বোচ্চ টেস্ট৷ বুধবার ছিল ২৪ হাজার ৪৭ টি৷ এই পর্যন্ত মোট টেস্টের সংখ্যা ১০ লক্ষ ২৮ হাজার ২৫১টি৷ প্রতি ১০ লক্ষ জনসংখ্যায় টেস্টের সংখ্যা বেড়ে হল ১১,৪২৫ জন৷ যে ৫৬ জনের মৃত্যু হয়েছে তাদের মধ্যে কলকাতার ২৭ জন৷

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা