শিলিগুড়ি: মুখ্যমন্ত্রীর পাহাড় সফরের আগেই আজ, রবিবার নতুন করে আন্দোলনে নামল মোর্চা। স্কুলে স্কুলে বাংলা পড়ানো বাধ্যমূলক করার সরকারি সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে গত সপ্তাহ থেকেই আন্দোলনের তোড়জোড় শুরু করেছিল মোর্চা৷ পাহাড়ে মুখ্যমন্ত্রীর সফরকালে টানা চারদিন আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার কর্মসূচিও নিয়েছে মোর্চা৷

যদিও, পাহাড়ে প্রথম রাজ্যের মন্ত্রিসভার প্রথম বৈঠককে কেন্দ্র করে প্রশাসনিক তৎপরতা তুঙ্গে৷ পাহাড়ে অশান্তি এড়াতে পুলিশের পক্ষ থেকে মোর্চার বিক্ষোভ কর্মসূচির অনুমতি দেওয়া হয়নি। বিনা অনুমতিতে রাস্তায় নামলে পুলিশ মোর্চা নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করবে বলে জানিয়েছে৷ তবে, পুলিশি হুঁশিয়ারি উপেক্ষা করে মোর্চা পথে নামবে বলেই সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে৷ বিমল গুরুং হুংকার দিয়েছেন, পরিস্থিতি বিগড়ালে রাজ্য সরকারই দায়ী থাকবে। জবরদস্তি করা হলে পাহাড়ে আগুন জ্বলবে।

পাহাড়ে গুরুং বাহিনীর নয়া হুঁশিয়াতে পর্যটক মহলে আতঙ্ক ছড়িয়েছে। পর্যটনের ভরা মরসুমে ধীরে ধীরে পাহাড় ছাড়তে শুরু করেছেন বহু পর্যটক৷ নতুন করে অশান্তি ছড়ানো হলে পাহাড়ের জন্য বুকিং নেওয়া বন্ধ রাখারও সিদ্ধান্ত নিয়েছেন পর্যটন ব্যবসায়ীরা৷
সোমবার চারদিনের সফরে পাহাড়ে আসছেন মুখ্যমন্ত্রী। মিরিকে জনসভা করে ৮ তারিখ দার্জিলিংয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকে তিনি যোগ দেবেন। শনিবার পুলিশ প্রশাসন দফায় দফায় বৈঠক করেছে। প্রস্তুত হচ্ছে মোর্চা শিবিরও।