সুভীক কুন্ডু, কলকাতা: আত্মবিশ্বাস ফিরেছে বাগানে৷ খেলাতেই ধরা পড়ল সেই চিত্র৷ দিন পাঁচেকের মধ্য ভোঁতা পেন্সিলে নতুন ধার৷ ঝকঝকে সনি,মাঝমাঠে ওমর-কিনোর জুটিতে সাপ্লাই লাইনে স্রোত৷ উইংয়ের বাড়ে বাড়ে ঝড় হাইতিয়ানের৷ পিন্টু-হেনরির পায়ে বেশ কয়েকটা ভালো আক্রমণ৷ চার্চিলের কাছে মুখ পোড়়ার পরের ম্যাচে ঝকঝকে বাগান৷ কিন্তু সব ভালো যার, সবক্ষেত্রে তার শেষ ভালো কি! বাগান-চেন্নাই ম্যাচে অবশ্য তেমনটা হয়নি৷

শেষ মুহূর্তে একটা ভুলে চেন্নাইয়ের কাছে ম্যাচ ড্র হলেও লড়াই থেকে পসিটিভ দিকগুলোকে ডার্বির আগে সম্পদ করার কথা বললেন শংকরলাল৷ আর আফশোস ভালো খেলেও পয়েন্ট হারানোর৷

কোচ যাই ভাবুন না কেন, হারের প্রতিধ্বনি বাজতে বাজতে এদিন ম্যাচ বের করল বাগান৷ শেষ দিকে নেস্টোর গোল পাওয়ার পর শেষ দশমিনিটে আক্রমণে বাগান ডিফেন্সকে ঝাঝরা করে দেয় চেন্নাই৷ আর শেষ দিকে চেন্নাইয়ের দুটো শট বারপোস্টে না লাগলে চার্চিলের পর চেন্নাই এক্সপ্রেসে ধাক্কা খেতে হত বাগানকে৷

চেন্নাই ম্যাচে দলের ফুটবলারদের একশো শতাংশের বেশি চেয়েছিলেন৷ দিনের শুরুতে বিপক্ষের বক্সে এক একটা আক্রমণ দেখে শংকর খুশি হতেই পারেন৷ কিন্তু ডিফেন্সই শেষে খলনায়ক!

ম্যাচ শেষে বললেন, ‘চার্চিল ম্যাচের খারাপ দিন থেকে শিক্ষা নিয়ে দল ঘুরে দাঁড়িয়েছে৷ দুই অর্ধে বারবার চেন্নাইয়ের গোলকিপারকে ব্যস্ত রেখেছে দল৷ ফুটবলাররা ঘুরে দাঁড়ানোর তাগিদ দেখিয়েছে৷ হাফ চান্সগুলো তেকাঠিতে জড়ালে আর শেষ দিকে ছোট্ট ভুল না হলে ম্যাচ জেতা যেত৷’

প্রথমার্ধে দুরন্ত খেলে হেনরি-পিন্টুরা চেষ্টা করলেও গোলের দেখা পায়নি বাগান৷ দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে এরপর ৫০ মিনিটে হেনরির পাস আর ডিবক্সের বাইরে থেকে সনির কামানদাগা শটের রসায়নে বিশ্বমানের গোল৷ হাইতি ম্যাজিশিনের গোলকে চলতি মরশুমের আই লিগের অন্যতম সেরা গোল মনে করছেন শংকর৷ কিন্তু শেষ মুহূর্তে নেস্টোর গোলের সময় বাগান ডিফেন্স তো দর্শক৷ সনির গোলকে মর্যাদা দিলেন কই সতীর্থরা৷ সপ্তাহ ঘুরলেই ডার্বি৷ কোচ ছোট্ট ভুল বললেও এই ডিফেন্স কিন্তু বাগানের মান ডোবাতে পারে৷পড়শি ক্লাবের মুখোমুখি হওয়ার আগে ভুলগুলো নিয়ে ফুটবলাদের সঙ্গে তাই বসতে চান শংকর৷

অন্যদিকে ফুটবল মক্কায় পিছিয়ে থেকে বাগানের বিরুদ্ধে ম্যাচ ড্র করে পয়েন্ট টেবিলে শীর্ষ স্থান ধরে রাখল চেন্নাই৷ লিগের সাত ম্যাচ শেষে অপ্রতিরোদ্ধ দক্ষিণের এই দল৷ ৫টি জয় ও ২টি ড্র করে ১৭ পয়েন্ট নিয়ে অন্য দলগুলির থেকে অনেকটাই এগিয়ে স্যান্ড্রোরা৷ চার্চিল ১০ পয়েন্ট নিয়ে দু’নম্বরে রয়েছ৷ দুরন্ত গতিতে ছুটে চলা এই চেন্নাইকে কি ধরা সম্ভব? প্রশ্নে বাগান কোচের নির্ভীক উত্তর, ‘লিগ এখনও বাকি, চাইলেই ধরে ফেলা যাবে চেন্নাইকে৷’