কলকাতা: পিয়ারলেসের কাছে হারের ধাক্কা সামলে ঘুরে দাঁড়াল মোহনবাগান৷ বৃহস্পতিবার এটিকে-কে হারিয়ে ডুরান্ড কাপের সেমিফাইনালে পৌঁছল সবুজ-মেরুন৷

ডুরান্ড কাপের ‘মিনি ডার্বি’-তে জয় দিয়ে বাগানে স্প্যানিশ যুগের সূচনা হয়েছিল৷ প্রথমবার কলকাতায় হওয়া ডুরান্ড কাপে মহামেডানকে ২-০ হারিয়ে মরশুম শুরু করেছিল কিবু ভিকুনার ছেলেরা৷ কিন্তু ডুরান্ডের জয়ের রেস কাটতে না-কাটতেই ঘরোয়া লিগে মুখ থুবড়ে পড়েছিল বাগানে স্প্যানিশ স্ট্র্যাটেজি৷ ঘরোয়া লিগে পিয়ারলেসের কাছে তিন-তিনটি গোল হজম করে সবুজ-মেরুন।

ঘরোয়া লিগে গতবারের রানার্স পিয়ারলেসের কাছে ০-৩ গোলে হেরে কলকাতা লিগের প্রথম ম্যাচে ভূপতিত হয়েছিল ভিকুনার মোহনবাগান। কিন্তু ডুরান্ডের দ্বিতীয় ম্যাচ জিতে এদিন শেষ চারে জায়গা করে নেয় ভিকুনার ছেলেরা৷ ঘরের মাঠে এদিন কিবু ভিকুনার ছেলেরা ২-১ গোলে হারায় এটিকে-কে৷

আগের ম্যাচেই পিয়ারলেসের বিরুদ্ধে বাগান ডিফেন্স নড়বড়ে থাকলেও এদিন সবুজ-মেরুন মাঠে বাগানের ত্রয়ী হয়ে দেখা দেন দুই স্প্যানিশ৷ মোরান্তের গোলে এগিয়ে যায় মোহনবাগান৷ বেইতিয়ার কর্নার থেকে হেডে গোল করেন মোরান্ত৷ শূন্যে বল গোলে রাখার ক্ষেত্রে দক্ষ বছর সাতাশের এই স্প্যানিশ ডিফেন্ডার৷

বাগান জার্সিতে মরশুমের শুরু থেকেই নজর কাড়ছেন বেইতিয়া। ভিকুনার দলের প্রাণভ্রমরা তিনিই। মোহনবাগানের হয়ে দ্বিতীয় গোলটি করেন তিনি৷ বাগানের মাঝমাঠের দায়িত্বে থাকা এই স্প্যানিশ মিড-ফিল্ডার এদিনও পুরো দলকে দারুণভাবে মেলে ধরেন। এটিকে-র হয়ে একমাত্র গোলটি করে আশিস প্রধান৷ এটিকে অবশ্য সেরা দল এদিনও নামায়নি। ফের এটিকে-তে নাম লেখানো স্প্যানিশ কোচ আন্তোনিও লোপেজ হাবাসও শহরে আসেননি। তবে পিয়ারলেসের কাছে লজ্জার হার থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে এদিনের জয় নিঃসন্দেহে ভিকুনার ছেলেদের আত্মবিশ্বাস বাড়াবে৷