কলকাতা: আশঙ্কা ছিলোই। অবশেষে সেই আশঙ্কাই সত্যি হল। পিছিয়ে গেল আই লিগের প্রথম কলকাতা ডার্বি। নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে রাজ্যেজুড়ে চলা প্রতিবাদ ও অশান্ত পরিবেশের কারণে আগামী ২২ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হচ্ছে না আই লিগে মরশুমের প্রথম কলকাতা ডার্বি।

এআইএফএফ বুধবার এক বিবৃতি মারফৎ আসন্ন রবিবার ডার্বি স্থগিত রাখার সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছে। বিবৃতিতে জানানো হয়েছে আগামী ২২ ডিসেম্বর রাজ্য পুলিশের তরফ থেকে নিরাপত্তা সংক্রান্ত আশ্বাস না মেলায় আই লিগে ইস্টবেঙ্গল-মোহনবাগান ডার্বি আপাতত স্থগিত রাখা হল। কিন্তু সর্বভারতীয় ফুটবল ফেডারেশনের বিবৃতিতে ম্যাচ স্থগিত রাখার নির্দিষ্ট কোনও কারণ দর্শানো হয়নি।

এআইএফএফ’র অ্যাপেক্স বডির তরফ থেকে জানানো হয়েছে ‘নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে রাজ্যজুড়ে চলা প্রতিবাদের কারণেই ম্যাচ স্থগিতের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’ হাউসফুল যুবভারতীতে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা জোগানে সন্দিহান থাকায় এব্যাপারে এআইএফএফ’র কাছে আবেদন করে রাজ্য পুলিশ।

নিরাপত্তা সংক্রান্ত ইস্যুতে বিধাননগর পুলিশ কমশনারেটের তরফ থেকে হোম টিম মোহনবাগানকে চিঠি দিয়ে জানানো হয়, ২২ ডিসেম্বর ফুল হাউস যুবভারতীতে তাঁদের পক্ষে ম্যাচ আয়োজনের দায়িত্ব নেওয়াটা চ্যালেঞ্জিং হয়ে দাঁড়াবে। এব্যাপারে বিধাননগর পুলিশ কমিশনারেটের পক্ষ থেকে একটি খোলা চিঠি লেখা হয় এআইএফএফ’কেও। যেখানে টিকিটের সংখ্যা কমিয়ে আনার আর্জি করা হয় বিধাননগর পুলিশের তরফ থেকে। কিন্তু কম দর্শক নিয়ে বহু প্রতীক্ষিত কলকাতা ডার্বি আয়োজনে সম্মতি জানায়নি ভারতীয় ফুটবল ফেডারেশন।

পালটা বাগান অর্থসচিব একটি চিঠির মাধ্যমে এআইএফএফ’কে ম্যাচটি পিছিয়ে দেওয়ার আর্জি জানান। পাশাপাশি তিনি এও জানান, ‘টিকিটসংখ্যা কমিয়ে ম্যাচ আয়োজনের অর্থ হল দলের হয়ে গলা ফাটাতে আসা হাজার-হাজার সমর্থকদের তাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত করা।’ বুধবার সকালে বিধাননগর পুলিশ কমিশনারেটে গিয়ে অতিরিক্তি পুলিশ সুপার কুনাল আগরওয়ালের সঙ্গে আলোচনাও সারেন বাগানের দুই কর্তা সৃঞ্জয় বোস ও দেবাশিস দত্ত।

শেষমেষ দু’তরফের চিঠি পেয়ে সমস্ত দিক পর্যালোচনা করে ২২ ডিসেম্বর ম্যাচ স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করল এআইএফএফ। পরবর্তীতে কবে অনুষ্ঠিত হবে এই ম্যাচ তা শীঘ্রই আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবে ফুটবল ফেডারেশন ।