জয়ের পর বাগান খেলোয়াড়দের উল্লাস৷ ছবি- মোহনবাগান টুইটার থেকে নেওয়া

কলকাতা: সবুজমেরুনে স্প্যানিশ যুগের সূচনা! আবির্ভাবেই সফল হলেন মোহনবাগানের স্প্যানিশ কোচ কিবু ভিকুনা। সুব্রত ভট্টাচার্যের প্রশিক্ষণাধীন মহামেডান স্পোর্টিংকে ২-০ গোলে হারিয়ে  ডুরান্ড কাপে যাত্রা শুরু করল বাগান। প্রথমবার কলকাতায় বসল ডুরান্ডের আসর৷ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সূচনা করেন ঐতিহ্যবাহী ১২৯তম ডুরান্ড কাপের৷

শুক্রবার সল্টলেক স্টেডিয়ামে বাগানের জোড়া গোলে ম্যাচ জয়ের নায়ক সালভা চামোরো। আবির্ভাবে জাত চেনালেন বার্সেলোনা ‘বি’ দলের প্রাক্তনীও। এদিন ম্যাচের প্রথমার্ধে তাঁর দু’গোলেই নির্ধারিত হল ম্যাচের ভাগ্য। দ্বিতীয়ার্ধে অবশ্য কোনও করতে পারেনি ভিকুনার ছেলেরা৷

ময়দানের পোড় খাওয়া কোচ তথা মোহনাবাগের ঘরের ছেলে বলে পরিচিত সুব্রত ভট্টাচার্যের দলের বিরুদ্ধে ম্যাচ জয়ের জন্য অনুশীলনে সেটপিসকেই ঢাল করেছিলেন কিবু। এদিন বাগানের প্রথম গোল সেই সেটপিসেরই ফসল। বেইতিয়ার নিখুঁত ফ্রি-কিক হেডে তিনকাঠিতে রাখেন চামোরো। ম্যাচের প্রথম পজিটিভ আক্রমণই গোলে রুপান্তর করে বাগান।

২১ মিনিটে আশুতোষের সেন্টার থেকে দলের হয়ে ব্যবধান বাড়ান সেই চামোরো। দু’গোলে পিছিয়ে পড়ে ম্যাচে ফেরার চেষ্টা করলেও মাঝমাঠে মহামেডানকে জমি ছাড়ার পক্ষপাতী ছিল না বাগান মাঝমাঠ। মাঝমাঠে এদিন দায়িত্ব কাঁধে তুলে নেন জোসেবা বেইতিয়া।

তবু বিরতির আগে গোল শোধ করার মতো পরিস্হিতি তৈরি করে ফেলে মহামেডান। কিন্তু শিলটনের বদান্যতায় এযাত্রায় রক্ষা পায় বাগান। বিরতির পরেও বেশ কয়েকবার গোলের কাছে পৌঁছে যায় মহামেডান। তবে গোলদুর্গ অক্ষত থাকায় জোড়া গোলে ম্যাচ জিতে মাঠ ছাড়ে গঙ্গাপাড়ের ক্লাব।