কলকাতা: আই লিগের আগে টুর্নামেন্টের মধ্যে দিয়ে দলের কম্বিনেশন ঝালিয়ে নেওয়ার শেষ সুযোগ। আর সেই টুর্নামেন্ট যখন কোনও আন্তর্জাতিক মানের হয়, তখন প্রস্তুতিটাও যে চূড়ান্ত পর্যায়ের হবে সেটা বিলক্ষণ জানেন কিবু ভিকুনা। বৃহস্পতিবার সেই লক্ষ্যেই দল নিয়ে শেখ কামাল আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট খেলতে বাংলাদেশ উড়ে গেলেন তিনি।

আগামী ২০ অক্টোবর বাংলাদেশের চট্টগ্রাম আবাহনীর বিরুদ্ধে টুর্নামেন্টে অভিযান শুরু করবে সবুজ মেরুন। তার আগে বৃহস্পতিবার দুপুরেই বাংলাদেশ পৌঁছে গেল মোহনবাগান। টুর্নামেন্টের গ্রুপ-‘এ’তে চট্টগ্রাম আবাহনী ছাড়াও মোহনবাগানের সঙ্গে রয়েছে লাওসের ইয়ং এলিফ্যান্ট ফুটবল ক্লাব ও মালদ্বীপের টিসি স্পোর্টস ক্লাব। অর্থাৎ বিদেশি ক্লাব দলগুলোর বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক মানের টুর্নামেন্টে আসন্ন আই লিগের দারুণ প্রস্তুতি সেরে নেওয়ার সুযোগ মোহনবাগানের। পাশাপাশি ডুরান্ড এবং কলকাতা লিগে ব্যর্থ হওয়ার পর বাংলাদেশের মাটিতে ভালো ফলাফল আই লিগের আগে আত্মবিশ্বাসও বাড়িয়ে দেবে কয়েকগুণ।

স্বাভাবিকভাবেই মোটামুটি পূর্ণশক্তির দল নিয়েই বাংলাদেশ পাড়ি দিয়েছেন কিবু ভিকুনা। তবে আশুতোষ মেহতা কিংবা তরুণ শুভ ঘোষের মত ফুটবলারদের রেখে যাওয়ার কোনও সঠিক কারণ এখনও জানা যায়নি। আই লিগের আগে সালভা চামোরো, জোসেবা বেইতিয়াদের পাশাপাশি এখনও অবধি মোহনবাগানের জার্সি গায়ে মাঠে না নামা জুলেন কলিনোস কিংবা ড্যানিয়েল সাইরাসদেরও দেখে নেওয়ার সুযোগ কিবু ভিকুনার কাছে।

মোহনবাগান ছাড়াও ভারত থেকে শেখ কামাল কাপে অংশগ্রহণ করছে গত মরশুমে আই লিগ জয়ী চেন্নাই সিটি এফসি ও চলতি মরশুমে ডুরান্ড জয়ী গোকুলাম কেরল এফসি। গ্রিপ-‘বি’তে দুই ভারতীয় ক্লাব ছাড়াও রয়েছে বাংলাদেশের বসুন্ধরা কিংস ও মালয়েশিয়ার তেরেঙ্গানু এফসি। আগামী ৩০ অক্টোবর চট্টগ্রামের এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে টুর্নামেন্টের ফাইনাল। টুর্নামেন্ট চ্যাম্পিয়ন পাবে ৫০ হাজার ডলার।