কলকাতা: তীর্থঙ্কর সরকারের গোলে গোকুলাম কেরালাকে হারিয়ে ১২৩তম আইএফএ শিল্ডের শেষ চারে পৌঁছে গেল মহামেডান স্পোর্টিং। ২০১৪ পর ফের শিল্ড জয়ের হাতছানি শতাব্দীপ্রাচীন ক্লাবের সামনে। ফাইনাল নিশ্চিত করার লক্ষ্যে আগামী বুধবার সেমিফাইনালে রিয়াল কাশ্মীর এফসি’র মুখোমুখি হবে সাদা-কালো শিবির।

কল্যাণী স্টেডিয়ামে সোমবার ম্যাচের ৯ মিনিটেই এগিয়ে যায় হোসে হেভিয়ার দল। দক্ষিণের দলটি ইতিবাচকভাবে শুরু করলেও ম্যাচের গতির বিরুদ্ধে গিয়ে লিড নেয় মহামেডান। প্রতি-আক্রমণ থেকে বল ধরে বিপক্ষ বক্সে আগুয়ান ফিলিপ আদজাকে অবৈধভাবে বাধা দেন গোকুলাম গোলরক্ষক উবেদ। রেফারি পেনাল্টি দিতে কোনও ভুল করেননি। স্পটকিক থেকে কোয়ার্টার ফাইনালে দলকে এগিয়ে দেন তীর্থঙ্কর সরকার। পালটা ২৩ মিনিটে ম্যাচে পেনাল্টি পেয়েছিল গোকুলাম কেরালাও।

জিথিন এমএসের গোলমুখী শট বক্সের মধ্যে এক সাদা-কালো ডিফেন্ডার হাতে লাগালে পেনাল্টি পায় গোকুলাম। কিন্তু স্পটকিক থেকে নিশানায় অব্যর্থ থাকতে পারেননি অধিনায়ক মহম্মদ আওয়াল। এখানেই শেষ নয়। প্রথমার্ধের শেষদিকে ওপেন-প্লে থেকে সমতা ফেরানোর একাধিক সুযোগ চলে এসেছিল দক্ষিণের দলটির কাছে। ডেনিসের বামপ্রান্তিক ক্রস থেকে ফাঁকা গোলে হেড করতে পারেননি শিবিল।

দ্বিতীয়ার্ধে গোকুলাম কোচ ভিনসেন্তো আলবার্তো আনেসে মালি স্ট্রাইকার গুইন্ডোকে এনে ম্যাচে ফেরার চেষ্টা করেন। কিন্তু মহামেডান গোলরক্ষক প্রিয়ন্তের দস্তানায় গোকুলামের ম্যাচে ফেরার রাস্তা আটকে যায়। এরপর প্রথমে ডিফেন্ডার দীপক দেবরানি এবং পরে গোলরক্ষক উবেদ লাল কার্ড দেখলে বেশ কিছু সময় ৯ জনে খেলতে হয় মালাবারিয়ানদের। বক্সের বাইরে এসে হ্যান্ডবল করায় ইস্টবেঙ্গল প্রাক্তন এই গোলরক্ষককে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখিয়ে মাঠের বাইরে করে দেন রেফারি।

শেষ অবধি কলকাতা জায়ান্টদের বিরুদ্ধে আর ম্যাচে ফেরা হয়ে ওঠেনি কেরালার দলটির। একমাত্র গোলে জিতে শিল্ডের সেমিফাইনাল নিশ্চিত হয় মহামেডানের।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।