মস্কো ও গ্রজনি: বিশ্বকাপেরে আসরে ঝড় তুলতে পারেননি৷ কিন্তু ঘরে ফেরার আগে বিতর্কের ঝড়ে জড়িয়ে গেলেন মিশরীয় তারকা মহম্মদ সালাহ৷ তাঁকে সাম্মানিক নাগরিকত্ব দিয়েছে চেচনিয়া স্বশাসিত সরকার৷ সেই সম্মান তিনি গ্রহণ করায় রুশ গোঁসার মুখে পড়তে চলেছেন৷ ২০০২ সালে মস্কো থিয়েটারে জঙ্গি হামলা হয়৷ সেই ঘটনায় চেচনিয়ার সশস্ত্র গোষ্ঠী সরাসরি জড়িত৷ শতাধিক মৃত্যুর পর বিখ্যাত থিয়েটার হলটি জঙ্গি মুক্ত করা সম্ভব হয়েছিল৷ রাশিয়ার মাটিতে বিশ্বকাপ ফুটবলে হামলার হুমকি দিয়েছে ইসলামিক স্টেটের মতো জঙ্গি সংগঠন৷ তাদের হামলা হতে পারে চেচনিয়া থেকেই বলে রুশ প্রতিরক্ষা ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের আশঙ্কা৷

বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমের খবর, রাশিয়া আপাতত মুখে কিছু না বললেও সৌদি আরবের সঙ্গে নিয়মরক্ষার সর্বশেষ ম্যাচটি মিশর খেলার পরেই মুখ খুলবে৷ ক্রেমলিনের রোষ গিয়ে পড়তে পারে মিশরের উপরেও৷ ফলে আন্তর্জাতিক কূটনীতির কেন্দ্রে পড়তে চলেছেন মহম্মদ সালাহ৷ বিবিসি জানাচ্ছে, দুবার অনুশীলন শিবিরে গিয়ে অনেকটা সময় কাটান চেচনিয়ার শাসক (প্রেসিডেন্ট) রমজান কাদিরভ৷ পরে তিনি নিজে হোটেলে গিয়ে দেখা করেন মহম্মদ সালাহর সঙ্গে৷ পরে সালাহকে সাম্মানিক নাগরিকত্ব প্রদান করেন৷ এদিকে সালাহর সঙ্গে চেচেন প্রেসিডেন্ট কাদিরভের ছবি প্রকাশ হতেই বিতর্ক শুরু হয়েছিল৷ এরপর নাগরিকত্ব ইস্যুতে সেই বিতর্ক আরও জমাট আকার নিতে চলেছে৷

চেচনিয়া সেই সোভিয়েত জমানা থেকেই মুসলিম অধ্যুষিত একটি অঙ্গ প্রদেশ কিন্তু স্বশাসিত৷ সোভিয়েত ভেঙে যাওয়ার পর রাশিয়ার একটি স্বশাসিত অঙ্গ রাজ্য হিসেবেই পরিচিত৷ এই প্রদেশের মুখ্য শাসক সেখানকার প্রেসিডেন্ট হিসেবেই পরিচিত৷ মিশরীয় ফুটবল দলটি চেচনিয়ার রাজধানী গ্রজনি শহরেই শিবির তৈরি করেছিল৷ আর দলের তারকা মহম্মদ সালাহকে দেখার জন্য অপেক্ষায় ছিলেন চেচনিয়ানরা৷