এই শরবতের নামে লুকিয়ে রয়েছে ভালোবাসা। বলাই বাহুল্য এই শরবত (mohabbat-ka-sharbat) শুধু মন প্রাণ তাজা করবে না সেই সঙ্গে সকলের মাঝে ভালোবাসাও ছড়িয়ে দেবে।

এই মুহূর্তে প্রচণ্ড গরমে আমাদের মাথা ও মন উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। সেই সময় মস্তিস্ক ও মনকে ঠান্ডা করতে ঠান্ডা পানীয় (mocktail) আমরা প্রায় সবাই খুঁজি।

সকলেই প্রাণভরে পান করে থাকি নানা ঠাণ্ডা পানীয় বা আইসক্রিম। এবার সেই তালিকায় স্থান পাক এই শরবতটি (mohabbat-ka-sharbat)। এর প্রতি চুমুকে মনে প্রানে মিলবে প্রশান্তি।

তবে এই পানীয়টি (mocktail) এসেছে দিল্লি থেকে। দিল্লির এই পানীয়টি (mocktail) গোলাপি রঙের হওয়ায় এর প্রতি আকর্ষণ স্বাভাবিকভাবেই বেশি হবে।

তাই এবারের গরমে আপনার ও আপনার পরিবারের সঙ্গী হোক এই শরবত। দিল্লির মানুষ অনেকেই গরম হলেই এই শরবত এর খোঁজে বেরিয়ে পড়তেন। তবে এবারে লকডাউন থাকায় সকলেই গৃহবন্দি।

তবে রাস্তার এই বিশেষ শরবতটি (mocktail) রাস্তা থেকে এবার বাড়ির ডাইনিং-এ পরিবেশন করুন সকলের জন্য। এটি বানানো খুব সহজ এবং সহজেই মন জয় করতে পারবেন ভালোবাসার মানুষদের।

উপকরণ: বানাতে লাগবে তরমুজের টুকরো, রোজ সিরাপ, ঠান্ডা দুধ, চিনি গুঁড়ো, বরফের টুকরো, গোলাপের পাপড়ি এবং এলাচ গুঁড়ো।

কীভাবে বানাবেন: একটি বড় পাত্র নিয়ে তার মধ্যে দুইকাপ ঠান্ডা দুধ ঢেলে দিন। এবারে এতে ২ টেবিল চামচ চিনির গুঁড়ো ঢেলে দিন।

২ টেবিল চামচ রোজ সিরাপ দিন। এবারে মিশিয়ে নিন সেটা।

আবার একের চার ভাগ টেবিল চামচ এলাচ এর গুঁড়ো মেশাতে হবে। সব উপাদান চামচ দিয়ে নেড়ে নিন।

দানা বের করে তরমুজ কেটে নিন। মিশ্রণে তরমুজের টুকরোগুলো এক এক করে দিয়ে দিন।

বরফের টুকরো মিশ্রণের মধ্যে দিয়ে দিন। সবকটা একসাথে আবার নেড়ে নিন।

এবার গ্লাসে ঢেলে পরিবেশন করুন শরবত। সাজানোর জন্য উপর থেকে গোলাপের পাপড়ি কুচিকুচি করে ছড়িয়ে দিতে পারেন। সঙ্গে কুচি করা কাজু বাদাম দিতে পারেন শোভা বাড়াতে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.