ময়নাগুড়ি: জলপাইগুড়িতে কলকাতা হাইকোর্টের সার্কিট বেঞ্চের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী৷ তবে তাই নিয়েও শুরু হল কেন্দ্র-রাজ্য তরজা৷ উদ্বোধনী মঞ্চ থেকেই বিরোধী তৃণমূল, বাম ও কংগ্রেসকে এক যোগে আত্রমণ শানালেন নরেন্দ্র মোদী৷ প্রশ্ন তুললেন বঞ্চনা নিয়ে৷ জানতে চাইলেন, ‘‘কেন উত্তরবঙ্গের মানুষের সুবিধার কথা এতদিন ভাবেনি ক্ষমতায় থাকা কংগ্রেস, তৃণমূল ও বামেরা৷’’ পালটা মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‘সার্কিট বেঞ্চের উদ্বোধন নিয়ে রাজনীতি করল কেন্দ্র৷ রাজ্য বা হাইকোর্ট কেউ জানেই না আজ উদ্বোধন করা হবে৷’’ প্রধানমন্ত্রীকে ফের এদিন মিথ্যেবাদী বলে কটাক্ষ করেন মমতা৷

আরও পড়ুন: সারদা, নারদা, রোজভ্যালিতে কাউকে ছাড়বে না এই চৌকিদার: মোদী

সার্কিট বেঞ্চের উদ্বোধন নিয়ে টালবাহানা কম হয়নি৷ দেরি হয়েছে প্রকল্প রূপায়ণে৷ এই প্রসঙ্গে মোদীর অভিযোগ, ‘‘স্পষ্ট হচ্ছে উত্তরবঙ্গের মানুষের অসুবিধার কোনও গুরুত্ব নেই এই তিন দলের কাছেই৷ তাই সার্কিট বেঞ্চ তৈরি করা হয়নি৷’’ মুথ্যমন্ত্রীর প্রশ্ন, ‘‘জমি রাজ্যের, সার্কিট বেঞ্চ হাইকোর্টে৷ ৩০০ কোটি টাকা খরচ করেছে রাজ্য সরকার৷ নোটিফিকেশন জারির অপেক্ষা ছিল৷ তাহলে কোন সরকার উন্নয়ন করেছে ওনাকে ভেবে দেখতে বলব৷’’

আর্কাইভ

দীর্ঘদিন ধরে এই সার্কিট বেঞ্চের উদ্বোধন নিয়ে টালবাহানা চলছিল। দিন কয়েক আগেই কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা এই সার্কিট বেঞ্চ অনুমোদন করে। মেলে রাষ্ট্রপতির অনুমোদনও। সংশ্লিষ্ট ফাইলেও স্বাক্ষর করেন রাষ্ট্রপতি।হাইকোর্টের সার্কিটবেঞ্চ হোক উত্তরবঙ্গে৷ সেকানকার মানুষের বহু দিনের দাবি এটি৷ কিন্তু বিভিন্ন কারণে তা বাস্তবের মুখ দেখছিল না৷ সার্কিট বেঞ্চের উদ্বোধন নিয়ে শুরু হয় কেন্দ্র রাজ্য চাপানউতোর৷

অবশেষে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর হাতে এদিন পথ চলা শুরু হয় সার্কিট বেঞ্চের৷ তৃণমূলের অভিযোগ ছিল ভোটের মুখে সার্কিট বেঞ্চের উদ্বোধন করে আসলে রাজনীতি করছে বিজেপি৷ দলের সেই দাবিকেই এদিন মাণ্যতা দেন মুখ্যমন্ত্রী৷

ময়নাগুড়িকে রাজ্যের শাসক দলের অভিযোগকে উড়িয়ে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী৷ তিনি বলেন, ‘‘কুড়ি বছর আগে হাইকোর্টে এই সার্কিট বেঞ্চ গঠনের প্রস্তাব হয়। পনের বছর আগেই সার্কিট বেঞ্চের জন্য কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা অনুমোদন দিয়েছিল। কিন্তু বিগত বাম ও বর্তমান তৃণমূল সরকার টালবাহানা করে এতদিন ধরে ঝুলিয়ে রেখেছিল সার্কিট বেঞ্চের উদ্বোধন। ফলে বঞ্চিত হয়েছেন উত্তরবঙ্গের মানুষ৷’’

আরও পড়ুন: ‘চৌকিদার’ই চুরি করেছেন ৩০ হাজার কোটি, প্রমাণ দিলেন রাহুল

ইকো পার্কে সাংবাদিকদের মুখোমিখি হয়ে এর প্রতিবাদ করেন মুখ্যমন্ত্রী৷ জানান, তৃণমূল আমলে নতুনবাবে সেজে উঠেছে উত্তরবঙ্গ৷ নতুন জেলা হয়েছে, পাহাড় ভালো আছে, বেঙ্গল সাফারি পার্ক হয়েছে, পর্যটন শিল্প গতি পেয়েছে৷ ফলে বোঝাই যাচ্ছে সব বুঝেই ভোটে হেরে যাওয়ার ভয় থেকে মিথ্যের আশ্রয় নিতে হচ্ছে মোদীকে৷
সিবিআই, ভোটে ইভিএমের ব্যবহার সহ নানা ইস্যুতে কেন্দ্র রাজ্য মতপার্থক্য চরমে৷ এবার সেই তালিকায় যুক্ত হল জলপাইগুড়িতে কলকাতা হাইকোর্টের সার্কিট বেঞ্চের উদ্বোধন বিতর্ক৷