নয়াদিল্লি: ‘ইন্ডিয়াজ ডটার’ নিষিদ্ধ ঘোষণা করার পর প্রথম বারের জন্য মুখ খুললেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। টাইমস ম্যাগাজিনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানিয়েছেন, “নির্ভয়া কে নিয়ে তৈরি ‘ইন্ডিয়াজ ডটার’ তথ্যচিত্র নিষিদ্ধ করাকে বাক স্বাধীনতার উপর হস্তক্ষেপ হিসেবে দেখা ঠিক হবে না। বৃহৎ স্বার্থের কথা মাথায় রেখেই ওই তথ্যচিত্র ব্যান করেছিলাম আমরা।” একই সঙ্গে মোদীর দাবি, সেই সময় দেশের আইন ব্যবস্থা ও গণতন্ত্রের কথা মাথায় রেখে ওই ডুকুমেন্টারি নিষিদ্ধ করা হয়েছিল।

২০১২ সালের ডিসেম্বরে দিল্লির চলন্ত বাসে গণধর্ষণের শিকার হন এক তরুণী। পরবর্তীকালে দেশজুড়ে দিল্লির গণধর্ষণের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ শুরু হয়। ধর্ষিতা যুবতির নাম দেওয়া হয় ‘নির্ভয়া’। ২০১২ সালের ওই ঘটনার উপর ভিত্তি করেই ব্রিটিশ সাংবাদিক ল্যাসলি উডউইন তৈরি করেন ‘ইন্ডিয়াজ ডটার’ নামের এক তথ্যচিত্র। যেখানে ওই ঘটনার মূল অভিযুক্ত মুকেশের বক্তব্যও রাখা হয়। এর পরেই তথ্যচিত্রটি ঘিরে দেশ জুড়ে শুরু হয় বিতর্ক। কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে ভিডিওটি নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়। এমনকি ইউটিউব থেকেও ভিডিওটি মুছে ফেলার নির্দেশ দেওয়া হয়।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।