সিমলা: ক্ষমতায় আসার পর থেকে বরাবরই দেশের নিরাপত্তায় বিশেষ গুরুত্ব দিতে দেখা গিয়েছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে। সেনাবাহিনীর প্রতিও বিশেষ নজর দিয়েছেন তিনি। তবে শুধুই সরকারে আসার পর নয়, বহু আগে থেকেই দেশের সুরক্ষায় বিশেষ আগ্রহ ছিল তাঁর।

সম্প্রতি এক প্রাক্তন সেনা অফিসার জানালেন, কার্গিল যুদ্ধের সময় সেনাবাহিনীর মনোবল বাড়াতে কীভাবে ছুটে গিয়েছিলেন নরেন্দ্র মোদী। কার্গিল যুদ্ধে লড়াই করা ওই সেনা অফিসার ব্রিগেডিয়ার কুশল ঠাকুর জানিয়েছেন সেইসময় মোদী কোনও পদে না থাকা সত্বেও ছুটে গিয়েছিলেন সেনাবাহিনীর কাছে।

বর্তমানে বিজেপি নেতা কুশল ঠাকুর বলেন, মোদীর সেদিনের উৎসাহ বুঝিয়ে দিয়েছিল যে জাতীয় নিরাপত্তা নিয়ে কতটা চিন্তিত তিনি। কার্গিল যুদ্ধে টাইগার হিল জয় করার পরের দিনই মোদী সেখানে গিয়েছিলেন বলে জানিয়েছেন ওই প্রাক্তন সেনা অফিসার।

তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ১৯৯৯ সালে মোদী প্রধানমন্ত্রীও ছিলেন না মুখ্যমন্ত্রীও ছিলেন না। ৫ জুলাই টাইগার হিল জয় করার পরের দিনই ছুটে গিয়েছিলেন তিনি। কুশম ঠাকুর তখন ১৮ গ্রেনেডিয়ার্সের কমান্ডিং অফিসার ছিলেন। মোদী সেইসময় হিমাচল প্রদেশে বিজেপির দায়িত্বে ছিলেন।

কুশল ঠাকুরের দাবি, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী দেশের জাতীয় নিরাপত্তা ও বিদেশনীতিকে অন্য মাত্রা দিয়েছেন। সার্জিক্যাল ও এয়ারস্ট্রাইক করে মোদী প্রমাণ করেছেন যে সন্ত্রাস কোনোভাবেই বরদাস্ত করা হবে না। এমনটাই মনে করেন কার্গিলের এই যোদ্ধা।

তিনি আরও উল্লেখ করেন যে হিমাচল প্রদেশের ৫২ জন যোদ্ধা কার্গিল যুদ্ধে প্রাণ দিয়েছিলেন। কেন্দ্রের সঙ্গে হিমাচল রেজিমেন্ট খোলার ব্যাপারে কথা বলতে চান তিনি।