কলকাতা: টার্গেট বাংলা, ব্রিগেডে সভা মোদীর। রবিবাসরীয় ব্রিগডে বিজেপির সভায় প্রধান বক্তা নমো। ‘বিশাল সমাবেশের দিকে যাচ্ছি’, কলকাতায় নেমেই এদিন টুইট করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এদিন নির্ধারিত সময়েই কলকাতা বিমানবন্দরে পৌঁছোয় মোদীর বিমান। সেখান থেকে কপ্টারে তিনি উড়ে যান রেসকোর্সের মাঠে। সেখান থেকে তিনি পৌঁছন ব্রিগেডের সভায়। নমো ব্রিগেডের মাঠে পৌঁছতেই মোদী স্বাগতম স্লোগানে ঝড় তোলেন অগণিত বিজেপি নেতা-কর্মী-সমর্থক।

রবিবাসরীয় ব্রিগেডে জনজোয়ার। রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে এদিন বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা ব্রিগেডের মাঠে হাজির। রাজ্যে আরও একটি পরিবর্তন চায় বিজেপি। তৃণমূল সরকারকে সরিয়ে বাংলা দখলে মরিয়া গেরুয়া শিবির। সেই লক্ষ্যেই আজ ব্রিগেডের মাঠে সভা মোদীর। ব্রিগেডের মাঠে আজ নক্ষত্র সমাবেশ। টলিউডের একঝাঁক তারকা ব্রিগেডের সভায় হাজির। ব্রিগেডের মঞ্চ আলো করে আজ হাজির হয়েছেন বাঙালির আইকন মিঠুন চক্রবর্তী। আনুষ্ঠানিকভাবে আজ বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন মিঠুন চক্রবর্তী।

বিজেপিতে যোগ দিয়ে এদিন মিঠুন চক্রবর্তী বলেছেন, ‘‘আজকের দিনটা স্বপ্নের মতো৷ মোদীর সঙ্গে একমঞ্চে আমি, এটাতো স্বপ্ন৷ জীবনে অনেক কিছু করার স্বপ্ন দেখেছি৷ আমি যা বলি তা করে দেখাই।’’ ‘‘এক ছোবলে ছবি’’, ব্রিগেডের মঞ্চে মিঠুনের নয়া ডায়লগ৷ এরই পাশাপাশি ব্রিগেডের সভা থেকে এদিন মিঠুন আরও বলেন, ‘‘আমি গর্বিত, আমি বাঙালি৷ আমি জলঢোঁড়া নই, বেলেঢোঁড়া নই, আমি জাত গোখরো৷’’

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।