নয়াদিল্লি: দ্বিতীয়বার সাফল্য ধরা দিয়েছে৷ দেশ পরিচালনার দায়িত্বে বিজেপি৷ দেশজুড়ে মোদী মোদী স্লোগান৷ শুক্রবারই দলের জয়ের কৃতীত্বের জন্য নরেন্দ্র মোদীকে শুভেচ্ছা দিয়েছিলেন বিজেপির ‘মার্গদর্শক’ লালকৃষ্ণ আদবানী৷ সাফল্যের ২৪ ঘন্টাও কাটেনি৷ পা ছুঁয়ে দলের বর্ষিয়ান লালকৃষ্ণ আদবানীর সঙ্গে দেখা করে তাঁর আশীর্বাদ নিলেন মোদী৷ সঙ্গে ছিলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহও৷

বিজেপি আজ মহিরুহ৷ কিন্তু চারা থেকে যাদের হাত ধরে আজ সুদৃঢ় হয়েছে দলের কলেবর তাদের মধ্যে অন্যতম মুরলি মনোহর জোশি৷ এদিন তাঁর সঙ্গেও দেখা করেন মোদী ও তাঁর সেনাপতি৷ দলের বর্তমান নেতাদের জোশির পরামর্শ, ‘‘দেশের হিতে বলিষ্ঠ পদক্ষেপ নিতে হবে৷ তাই জন্যই মানুষ আস্থা রেখেছেন বিজেপির উপর৷’’

আরও পড়ুন: বাংলায় গেরুয়া ঝড়: কালীঘাটের বাড়িতে জরুরি বৈঠক ডাকলেন মমতা

বিজেপির অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা আডবানীকে মোদী বলেন, বিজেপির আজকের এই সাফাল্য এসেছে তাঁদের মতো মহান নেতৃত্বের জন্যই। কয়েক দশক ধরে দলের সংগঠন এবং মানুষের কাছে পৌঁছনোর জন্য শুভ ও উপযুক্ত ভাবনার যোগান দিয়ে গিয়েছেন তাঁরা৷ পালটা আদবানীও শুভেচ্ছা জানান প্রধানমন্ত্রীকে৷

লোকসভা নির্বাচনের শুরুতেই এই দুই প্রবীণ নেতাকে নিয়ে তুমুল বিতর্ক তৈরি হয় বিজেপির অন্দরে। বয়সজনিত কারণে তাঁদের টিকিট দেননি মোদী-শাহ জুটি৷ প্রকাশ্যে ক্ষোভ উগড়ে দেন মুরলি মনোহর জোশী।

আরও পড়ুন: প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে তৃণমূলের ৪০ বিধায়ক: বিস্ফোরক অর্জুন

কানপুর থেকে ভোটে লড়তেন জোশী৷ টিকিট না পেয়ে নিজের কেন্দ্রের ভোটারদের চিঠি লেখেন তিনি৷ তাতে বলেন, ‘‘আমাকে বিজেপির সাধারণ সম্পাদক রামলাল বলেছেন, ভোটে প্রার্থী না হতে। তাই আমার এবার কানপুর থেকে প্রার্থী হওয়া হল না।’’ ‘লৌহপুরু’ষ আডবানীও প্রকাশ্যে অসন্তোষের কথা না জানালেও দুঃখের কথা জানান দলের অন্দরে৷

দলের সাফল্যে বিতর্ক আজ অতীত৷ বিজেপির বর্তমান জয়ের কারিগররা দেখা করলেন অতীতের কুশীলবদের সঙ্গে৷ আলিঙ্গনে মোদী শাহ কে কাছে টেনে নিলেন আজবানী জোশী৷ এযেন ‘মিলে সুর মেকা তুমহারা’৷