ওয়াশিংটন:  একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ফের দেশের ক্ষমতায় নরেন্দ্র মোদী। গত বারের থেকে কয়েকগুণ বেশি লোকসভা আসন পেয়ে দ্বিতীয়বারের জন্যে সরকার গঠন করতে চলেছেন তিনি। ফের নতুন করে নরেন্দ্র মোদী ক্ষমতায় ফেরায় উল্লাসে মাতল আমেরিকা। এর ফলে ভারত-মার্কিন সম্পর্ক আরও মজবুত হবে বলে মনে করছেন আমেরিকার মানুষ। শুধু তাই নয়, আরও বেশি আসন নিয়ে মোদীর ক্ষমতায় ফেরা রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে নজির সৃষ্টি করেছে বলে জানিয়েছেন দ্য আমেরিকান ইন্ডিয়া পাবলিক অ্যাফেয়ার্স কমিটির প্রেসিডেন্ট জগদীশ সেওহানি।

গত ২৩ তারিখ লোকসভা ভোটের ফলাফল প্রকাশ হওয়ার পর থেকেই বোঝা যায় মোদীর জয় নিশ্চিত। এরপর সময় যত এগোয় তত একের পর এক আসন আসন আসতে থাকে বিজেপির ঘরে। শেষমেশ সংখ্যাগরিষ্ঠতার বেশি আসন পেয়ে ক্ষমতার শীর্ষে মোদী। আর এই প্রসঙ্গেই জগদীশ সেওহানি জানান, ‘‘বিজেপি ও এনডিএকে পুনরায় নির্বাচিত করে ভারতবাসী প্রধানমন্ত্রী মোদীর উন্নত প্রশাসনিক কাজে সিলমোহর দিয়েছে। বিশেষ করে তাঁর উন্নয়ন নীতি ‘সবকা সাথ সবকা বিকাশ’ এবং দেশের নিরাপত্তার স্বার্থে সন্ত্রাসদমনে জিরো টলারেন্স নীতির উপর।’ আগামী পাঁচ বছরে ভারতের উন্নয়নকে মোদী অন্য মাত্রায় নিয়ে যাবেন বলেও আশাপ্রকাশ করেছেন জগদীশ।

অন্যদিকে, ইউএসইনপ্যাক নামে ভারতীয় বংশোদ্ভূত মার্কিনীদের সংগঠন বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, ‘মোদীর নেতৃত্বে খুব শীঘ্রই বিশ্বের প্রথম তিন বৃহত্তম অর্থনীতির দেশে পরিণত হবে ভারত।’ আমেরিকার ওভারসিজ ফ্রেন্ডস অব বিজেপি নামে এক সংগঠন প্রধানমন্ত্রী মোদীকে অভিনন্দন জানিয়েছে। একই সঙ্গে তারা জানিয়েছে, বিজেপির লক্ষ লক্ষ স্বেচ্ছাসেবক মোদী ও অমিত শাহের জয়ের জন্য ব্যাপক পরিশ্রম করেছে।